পুরুষদের উলুধ্বনি দেওয়া নিষেধ কেন? জানুন শাস্ত্রমতে ব্যাখা

24
পুরুষদের উলুধ্বনি দেওয়া নিষেধ কেন? জানুন শাস্ত্রমতে ব্যাখা

হিন্দু রীতি নীতি অনুসারে পূজা হোক যজ্ঞ কিংবা কোনো বিবাহ, অন্নপ্রাশনের আনন্দ অনুষ্ঠান, শঙ্খধ্বনি এবং উলুধ্বনি অন্যতম আচারের মধ্যে পড়ে। প্রতিটি শুভ অনুষ্ঠানে হিন্দু মহিলাদের উলুধ্বনি দিতে শোনা যায়। সনাতন ধর্মে বিশ্বাসীরা মনে করেন উলুধ্বনিতে আশেপাশের পরিবেশ পবিত্র হয়ে ওঠে। নেতিবাচক প্রভাব কাটিয়ে উঠে চারিদিকে পজিটিভ এনার্জি ছড়িয়ে পড়ে।

তবে উলুধ্বনি দিতে কেবল মহিলাদেরই শোনা যায়। হিন্দু রীতি-নীতি অনুসারে যেকোনো শুভ অনুষ্ঠানে উলুধ্বনি করে থাকেন মহিলারাই। পুরুষের কিন্তু কখনো উলুধ্বনি করতে শোনা যায় না। এমনটা কেন হয় তার একটি স্পষ্ট ব্যাখ্যা রয়েছে হিন্দু শাস্ত্রে। শাস্ত্র বিশেষজ্ঞদের মতে, উলুধ্বনি একটি স্ত্রী আচার। এতে তাই পুরুষদের কোনো অধিকার নেই।

হিন্দু শাস্ত্রে ব্যাখ্যা করা আছে, উলুধ্বনিতে দেবতা সন্তুষ্ট হন। তবে একমাত্র মহিলাদের উলুধ্বনিতেই দেবতাকে সন্তুষ্ট করা সম্ভব। তাই হিন্দু শাস্ত্রে পুরুষদের উলুধ্বনি দেওয়া নিষেধ। পাশাপাশি মহিলাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার ক্ষেত্রেও কিন্তু উলুধ্বনির একটি বিশেষ ভূমিকা রয়েছে বলে মনে করা হয়। উলুধ্বনি দেওয়ার সময় মহিলাদের পেট সংকুচিত হয়। যা তাদের বিভিন্ন স্ত্রীরোগের হাত থেকে রক্ষা করে।