বাংলায় বিজেপির দায়িত্ব কাদের ওপর? স্পষ্ট হল অমিত শাহের বঙ্গ সফরে

8
বাংলায় বিজেপির দায়িত্ব কাদের ওপর? স্পষ্ট হল অমিত শাহের বঙ্গ সফরে

বিশেষজ্ঞদের মতে বঙ্গ বিজেপির অন্দরেই আসলে গন্ডোগোল। কারণ সুকান্ত মজুমদারকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি করার ৮ মাস পরেও বঙ্গ বিজেপির অন্দরে দারুণ ভাবে ক্ষোভবিক্ষোভ লক্ষ্য করা গেছে। এদিকে আবার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দুর অবস্থান নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে দলে। তাঁর গুরুত্ব কতটা থাকবে? এই ধরনের প্রশ্ন এখন গেরুয়া শিবিরে কান পাতলেই শোনা যায়। কিন্তু এই ধরনের জল্পনা কল্পনা সবকিছুই যেন বেকার হয়ে পড়েছে অমিত শাহের বঙ্গ সফরের পর। কারণ দুইদিনের সফরে অমিত শাহ সর্বদা পাশে রেখেছে শুভেন্দু ও সুকান্তকে। তাঁদের পাশে রেখেই সব প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন তিনি।

তাঁর সাথে বাংলা বিজেপির দায়িত্ব কাদের ওপরে ছেড়ে দিতে চাইছেন সেটা নিয়েও স্পষ্ট জানিয়েছেন তিনি। মোট কথা এই দুই দিনের বঙ্গ সফরে অমিত শাহের ছায়া সঙ্গী হিসেবে দেখা গেছে সুকান্ত ও শুভেন্দুকে। অমিত শাহের গাড়িতে করেই শুভেন্দু কাশীপুরে এসেছেন। এখানেই শেষ নয়, দলীয় বৈঠক শেষ করে ভিক্টোরিয়া অনুষ্ঠান ও তাঁর পরে সৌরভ গাঙ্গুলির বাড়ি সব জায়গাতেই ছিলেন শুভেন্দু। সুকান্ত ও শুভেন্দু এই দুজন যে আগামী দিনে বিজেপির বাংলায় প্রধান মুখ হতে চলেছে সেটা অমিত শাহের সফরই বলে দিচ্ছে।

সৌরভ গাঙ্গুলির বাড়িতে নৈশভোজ শেষ করে হোটেলে ফেরেন তারা। আর সেখানেই চলে ফের বৈঠক। অনেকে মনে করে এটাই ছিল অমিত শাহের আসল বৈঠক। মধ্যরাত পর্যন্ত চলা বৈঠকের পরেই তিনি দিল্লির উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। ঘ্নটা দেড়েকের সেই বৈঠকে ছিলেন সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক বিএল সন্তোষ, মোট কতাহ সেই বৈঠকে উপস্থিত ব্যাক্তিরাই যে আগামী দিনে বঙ্গ বিজেপির মূল দায়িত্ব পেতে চলেছে সেটা মুখে না বললেও ইশারায় বুঝিয়ে দিয়েছেন অমিত শাহ। তাছাড়া সেই বৈঠকে সুকান্ত, শুভেন্দু ছাড়া ছিলেন অমিত মালবীয়। এর সাথে ছিলেন রাজ্যের সাধারণ ও অন্যতম সাধারণ সম্পাদক অমিতাভ চক্রবর্তী ও জগন্নাথ চ্যাটার্জী।।