“বিজেপি ক্ষমতায় এলে রাজনীতি ছেড়ে দেবো” হুংকার মোর্চা নেতা বিমল গুরুং এর

11

বিজেপি রাজ্যের ক্ষমতায় এলে রাজনীতি ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা করলেন গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার নেতা বিমল গুরুং! বুধবার দার্জিলিঙের সিংমারি পার্টি অফিসের পুনরায় উদ্বোধন করে কেন্দ্রীয় শাসকদলের বিরুদ্ধে হুংকার দিয়ে জোর গলায় তিনি বলেন, “বিজেপি এই রাজ্যের ক্ষমতায় আসবে না। যদি তারা ক্ষমতায় আসে, তাহলে আমি রাজনীতি ছেড়ে দেবো”। পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছেন বিমল গুরুং।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বিমল গুরুং নিরুদ্দেশ হওয়ার পর প্রায় সাড়ে তিন বছর অতিবাহিত হয়ে গিয়েছে। ২০১৭ সালে পাহাড়ে গোলমালের সূত্রপাত হওয়াতে পুলিশ প্রশাসনের তরফ থেকে বিমল গুরুংয়ের পার্টি অফিস বন্ধ করে দেওয়া হয়। সাড়ে তিন বছর পর ফিরে এসে সেই পার্টি অফিস নিজে হাতে খুললেন বিমল গুরুং। পার্টি অফিস খোলার পরপরই সংবাদমাধ্যমের সামনে বিজেপির বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন তিনি।

বিজেপির বিরুদ্ধে তার অভিযোগ, “গোর্খাদের বরাবর কষ্ট দিয়ে এসেছে বিজেপি। এখন তারা ভোটে জিততে নানা রকম কৌশল করছে!”। আসন্ন একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে দলবদল পন্থাকে কটাক্ষ করে বিমল গুরুংয়ের বক্তব্য, টাকা দিয়ে, পদের প্রলোভন দেখিয়ে দলে ভাঙন ধরানোর রাজনীতি করছে বিজেপি। তবে এতে অবশ্য বিজেপির বিশেষ কোনো লাভ হবে না বলেই মনে করেন বিমল গুরুং।

বিমল গুরুংয়ের দাবি, যারা গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা ত্যাগ করে বিজেপি শিবিরে নাম লেখাচ্ছেন, তারা আদতে দলের ততটা সক্রিয় সদস্য ছিলেন না। বিমল গুরুং এও বলেছেন, এবার বিজেপিকে শিক্ষা দিতেই হবে, তাই তৃণমূলস্তর থেকে কাজ করতে শুরু করেছেন তিনি। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত সপ্তাহেই একদা গুরুং ঘনিষ্ঠ নেতা সরোজ থাপা, শঙ্কর অধিকারী, হেমন্ত গৌতমেরা মোর্চা ত্যাগ করে বিজেপি শিবিরের নাম লেখান।