দিল্লির বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণের স্বার্থে কি কি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে? বায়ু নিয়ন্ত্রণ কমিটিকে প্রশ্ন সুপ্রিম কোর্টের

4
দিল্লির বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণের স্বার্থে কি কি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে? বায়ু নিয়ন্ত্রণ কমিটিকে প্রশ্ন সুপ্রিম কোর্টের

শীত আসলেই দিল্লির মানুষ যে অসুবিধার সম্মুখীন হয় সেখান থেকে নিস্তার পেতে সুপ্রিম কোর্ট ও কেন্দ্রের মধ্যে শুরু হয়েছে প্রশ্নোত্তর পর্ব। মোটকথা দিল্লি এবং তার সংরক্ষন এলাকায় খড়কুটো পুড়িয়ে বায়ু দূষণ থেকে বাঁচার জন্য কি পরিকল্পনা করেছে বায়ু নিয়ন্ত্রণ কমিটি এই নিয়ে প্রশ্ন করছে সুপ্রিম কোর্ট। প্রতিবার দিল্লি এবং তার সংলগ্ন এলাকায় ফসল কেটে খড়কুটো পুড়িয়ে ফেলার প্রথা রয়েছে কিন্তু এই কারণে দিল্লির বায়ুরমান একেবারেই নিম্নমুখী। তার সমাধান সূত্র খুঁজতেই কেন্দ্র বানিয়েছে একটি কমিটি কিন্তু তাও এখনো মেলেনি সমাধান সূত্র। গত সোমবার সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চ এর তরফ থেকে জানানো হয়েছে, দিল্লি সরকারের পক্ষে থাকা সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহেতাকে। মোটকথা তিনি যখন এই দায়িত্বে রয়েছেন বায়ু দূষণ নিয়ন্ত্রণের স্বার্থে কি কি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে? এই সমস্ত নথি জমা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এই বায়ুদূষণ নিয়েই এক পরিবেশ প্রেমিক আদিত্য দুবে জনস্বার্থ মামলা করেছে সুপ্রিম কোর্টে। সেখানে অভিযোগ করা হয়েছে ফসল কাটার ফলে যে খরকুটো পুড়িয়ে ফেলা হয় তার কারণে দিল্লির বায়ু দূষণের মাত্রা একেবারেই তলানিতে গিয়ে পৌঁছায়। আর সেই কারণেই কোভিড আক্রান্ত রোগীদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত ঝুঁকি বৃদ্ধি পেয়েছে এমনকি তাদের মৃত্যু পর্যন্ত হয়েছে। এখানেই শেষ নয় মামলাকারীদের আইনজীবী সুপ্রিম কোর্টে জানিয়েছেন, বর্তমানে খরগোপুর পরিসংখ্যান অনেকটাই কম। বলা যেতে পারে কিছুটা হলেও সমস্যার সমাধান হয়েছে। তবে এর স্থায়ী সমস্যা সমাধানের জন্য কমিশনকে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। তাছাড়া গত বছর সুপ্রিম কোর্টের জমা করা এফিডেভিটে নতুন কমিশন গঠন করা সম্পর্কে সবিস্তার বলা হলেও সমাধান সূত্র নিয়ে বিস্তারিত ব্যাখ্যা নেই।

এই নিয়ে অবশ্য গত বছরের শেষ শুনানিতে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছেন, কমিশনের কাজে আমরা সন্তুষ্ট নই। খরকুটো পুড়িয়ে বায়ুদূষণ বৃদ্ধি এই সমস্যাকে রক্ষার জন্য কেন্দ্রীয় সরকার একটি অর্ডিন্যান্স দাবি করে বিশেষ কমিটি গঠন করেছে। ইতিমধ্যে অবশ্য কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে ৫০ টি দল গঠন করা হয়েছে খতিয়ে দেখার জন্য, আর সেখানেই ধরা পড়েছে ৪৪ শতাংশ মত দূষণ বৃদ্ধি পেয়েছে যার কারণ একমাত্র খড়কুটো পোড়ানো।