দীর্ঘক্ষন স্মার্টফোন ঘাটাঘাটি করলে মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর কেমন প্রভাব পরে? জেনে নিন

17
দীর্ঘক্ষন স্মার্টফোন ঘাটাঘাটি করলে মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর কেমন প্রভাব পরে? জেনে নিন

এখন আমাদের নিত্যদিনের সঙ্গী স্মার্ট ফোন, আট থেকে আশি সবার চোখ আটকে গেছে স্মার্ট ফোনের স্ক্রিনে। কিন্তু এতক্ষণ স্মার্টফোনে ঘাটাঘাটি সময় কাটানো স্বাস্থ্যের পক্ষে একদমই ভালো নয়। মানুষ এখন ঘরবন্দি, বাচ্চারাও স্মার্টফোনের যুগে অনলাইন গেমকে বেশি গুরুত্ব দেয়। আর সেই কারণেই স্বাস্থ্যের ক্ষতি। তবে সম্প্রতি এক গবেষণায় নতুন এ তথ্য উঠে এসেছে। সেখানে গবেষকরা জানিয়েছেন দীর্ঘক্ষন স্মার্টফোন ঘাটাঘাটি করলেও শরীরের ওপর প্রভাব পড়ে না, স্বাস্থ্যের ক্ষতি হয় না।

সম্প্রতি টেকনোলজি মাইন্ড এন্ড বিহেভিয়ার নামক একটি জার্নালে নতুন গবেষণার কিছু তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। আর সেখানেই জানানো হয়েছে, স্মার্টফোন ব্যবহারের ওপরে কখনোই ব্যক্তির মানসিক চাপ, দুশ্চিন্তা, আনন্দ, উত্তেজনা, হতাশা, এমনকি অবসাদ নির্ভর করে না। গবেষকরা টানা এক সপ্তাহ ধরে ১৯৯ জন আইফোন ইউজারের ওপর ও ৪৬ জন অ্যান্ড্রয়েড ইউজারদের ওপর নজর রেখেছিল। তারা কখন কতটুকু সময় ধরে স্মার্টফোন ব্যবহার করে, তাদের ওপর কতটা মানসিক চাপ থাকে এমনকি তাদের স্বাস্থ্যবিধির উপরেও নজর রাখা হয়েছিল।

তারা কেমন মানুষের অবসাদে ভুগছে, স্মার্টফোন ব্যবহারে কোন প্রভাব পড়ছে কিনা সবকিছু খতিয়ে দেখার পরে, তারা এই চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে আসে যে, স্মার্ট ফোন ব্যবহার করলে কোন ভাবেই স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব পড়ে না। কিন্তু অন্য প্রান্তে প্রশ্ন ওঠে তাহলে যে বলা হয় স্মার্ট ফোন ব্যবহার করলে বৃদ্ধি পায় দুশ্চিন্তা? এই নিয়ে গবেষকরা জানায় আসলে দীর্ঘক্ষন স্মার্টফোন ব্যবহার করার পরে যখন মানুষের উপলব্ধি হয় তখন তৈরি হয় মানসিক অবসাদ দুশ্চিন্তা।