রাজ্যে মদ বিক্রি বন্ধ করার প্রসঙ্গে কি মত মমতার? জেনে নিন

10
রাজ্যে মদ বিক্রি বন্ধ করার প্রসঙ্গে কি মত মমতার? জেনে নিন

তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখন দিল্লি সফরে ব্যস্ত, বিভিন্ন উদ্দেশ্য নিয়েই তার এই দিল্লি সফর। যার প্রতিফলন তার বিভিন্ন কাজে স্পষ্ট লক্ষ্য করা যাচ্ছে। একদিকে যেমন আগামী লোকসভা নির্বাচনকে মাথায় রেখে জোটের পরিকল্পনা করছেন, অন্যদিকে বিশ্ব বঙ্গ বাণিজ্য সম্মেলনে লগ্নী টানার চেষ্টা করছেন। আর সেইসব কারণেই একের পর এক বৈঠক করছেন রাজনীতিবিদ থেকে শুরু করে শিল্পপতিদের সাথে।

বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বদের নিয়েই তার এই বৈঠক, অনেকেই অনেক উদ্দেশ্যে বিভিন্ন প্রশ্ন করছেন। এমন ভাবেই সমাজ সেবী মেধা পাটেকর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন করেছেন, পশ্চিমবঙ্গ সরকার মদ বিক্রি নিয়ে কি পরিকল্পনা করছেন? আগামী নির্বাচনী এজেন্ডায় পশ্চিমবঙ্গ সরকার কি মদ বিক্রি বন্ধ করবেন? এই প্রশ্নের উত্তর হিসেবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেবলমাত্র একটি উত্তর দিয়েছেন। আপনি বলেছেন এই বিষয় নিয়ে অবশ্যই ভাববো ।

যদি বর্তমান সময়ে দেখা যায় দেশের বিভিন্ন রাজ্য ইতিমধ্যে মদ বিক্রির পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। তবে এখনো অনেক রাজ্যেই এই সিদ্ধান্তে অগ্রসর হতে পারেনি যার মধ্যে রয়েছে পশ্চিমবঙ্গও। মদ বিক্রি করে সরকার রাজস্ব আদায় করছেন এই ধরনের অভিযোগ প্রথমেই এনেছেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী।

এবার সেই প্রশ্নও তুলেছেন সমাজসেবী মেধা পাটেকর, তিনি বলেছেন রাজ্য সরকার গুলি মদ বিক্রি করে পয়সা অর্জন করছেন যেটা কিনা পাপের পয়সা বলেই অভিহিত করতেন মহাত্মা গান্ধী বাবাসাহেব আম্বেদকর। তিনি আরো বলেছেন আগামী নির্বাচনী এজেন্ডায় এই মদ বিক্রি বন্ধ করার প্রসঙ্গ কি তুলবেন? এই মদ বিক্রি যা কিনা মহিলাদের জন্য অনেকটাই কষ্টের। অনেকের সংসার ভাঙ্গার পেছনে দায়ী এই মদ্যপান। তবে অনেকেই মনে করছেন, এই ধরনের প্রসঙ্গ যা কিনা বাণিজ্য নগরীর মধ্যে বসে তিনি মুখোমুখি হয়েছেন, তার অনেকটাই অবাকের।

মোদী হাটাও দেশ বাঁচাও এই স্লোগানকে কেন্দ্র করেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আগামী পদক্ষেপ। তিনি সর্বদা বলে আসছেন , যে করেই হোক বিজেপির এই ও গণতান্ত্রিক দেশ চালানোর পন্থাকে রুখে দিতে হবে। মানুষের পাশে ও স্বার্থে এগিয়ে আসতে হবে।ঠিক সেই সূত্র ধরেই সমাজসেবী মেধা পাটেকর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে এই ধরনের প্রশ্ন করেছেন। তবে দেখার বিষয় এই নিয়ে পরবর্তীতে কি পদক্ষেপ নেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।।