বিধায়ককে এক কিলো ওজনের রুপোর মুকুট পরিয়ে সম্বর্ধনা! ঘটনায় বিতর্ক এলাকায়

23
বিধায়ককে এক কিলো ওজনের রুপোর মুকুট পরিয়ে সম্বর্ধনা! ঘটনায় বিতর্ক এলাকায়

বিধায়কের মাথায় এক কিলো ওজনের রুপোর মুকুট পরিয়ে সম্বর্ধনা ঘিরে বিতর্ক। ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম বর্ধমানে। দলের পক্ষ থেকে রুপোর মুকুট পরিয়ে বিধায়ককে দেওয়া হল সম্বর্ধনা। মূল্যবান উপহার ঘিরে তৈরি হয়েছে বিতর্ক। এহেন কাজের জন্যে শাসক দলের কর্মীদের শুনতে হল বিজেপি, সিপিএম-এর পালটা কটাক্ষ। এলাকার মানুষ, দলীয় কর্মীরা চাঁদা তুলে মুকুটটি বিধায়ককে উপহার দিয়েছে বলে জানিয়েছেন দলের স্থানীয় নেতারা ।

সূত্রের খবর, শনিবার সন্ধ্যায় পাণ্ডবেশ্বরের কুমারডিহি পঞ্চায়েতের জোয়ালভাঙ্গা গ্রামে স্থানীয় তৃণমূল কর্মীর উদ্যোগে একটি সংবর্ধনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সেই সভাতে বিধায়ক নরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীকে সেই মুকুট পরিয়ে দেন দলের কর্মীরা। মুকুট পেয়ে বিধায়ক নিজেও খুবই আনন্দিত হয়েছেন। ঘটনা প্রসঙ্গে নরেন্দ্রনাথ বাবু বলেন, “এতে বিতর্কের কিছু নেই। আমাকে ভালোবেসে চাঁদা তুলে গ্রামবাসী এবং দলীয় কর্মীরা এই মুকুটটি উপহার দিয়েছেন, তাই আমি সেটি গ্রহণ করেছি।” এদিকে উপহার পাওয়া রুপোর মুকুটটি স্থানীয় কালীমন্দিরে অর্পণ করা হবে বলে নরেন্দ্রনাথ বাবু জানান।

এই বিষয়ে বিতর্কের কোনও কারণ নেই বলে মত অনুষ্ঠানের আয়োজক তথা তৃণমূলের স্থানীয় অঞ্চল সভাপতি কিরিটি মুখোপাধ্যায়। তাঁর দাবি, “নরেন্দ্রনাথ বাবু একদিকে যেমন বিধায়ক, তেমনি তিনি এই এলাকার বাসিন্দাদের অভিভাবক।” রুপোর মুকুট উপহার প্রসঙ্গে কিরিটি মুখোপাধ্যায় আরও জানান, সম্বর্ধনায় নতুনত্ব কিছু করার ভাবনা থেকেই এই উদ্যোগ। তিনি জানান রুপোর মুকুটটির জন্য গ্রামের মানুষজন ও দলের কর্মীরা সবাই সাধ্যমত চাঁদা দিয়েছেন। এর মধ্যে অযথা বিতর্ক খোঁজা সত্যিই অনর্থক ।

যদিও এই ঘটনার প্রেক্ষিতে বিজেপির জেলা সভাপতি তথা বিধায়ক লক্ষণ ঘরুই এবং সিপিএম-এর নেতা পঙ্কজ রায় সরকার কটাক্ষ করেছেন তৃণমূলকে। ঘাসফুল শিবিরের এই সংবর্ধনা সভার সমালোচনায় মুখর বিরোধী নেতারা।