চাকরিপ্রার্থীদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ! জেনে নিন

17
চাকরিপ্রার্থীদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ! জেনে নিন

আজ আলোচনা করব এমন ব্যক্তিদের নিয়ে যা থেকে জীবনে উন্নতি লাভ করা যাবে। সোশ্যাল মিডিয়ায় আমরা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন অনুপ্রেরণামূলক গল্প পড়ার সুযোগ পাই এবং তা থেকে নিজেকে উদ্বুদ্ধ করার একটি সুযোগ পেয়ে থাকি, এটিও সেরকমই।

যা থেকে কেউ শিক্ষা নিতে পারলে তার জীবনে উন্নতি ঘটবেই। আমরা কথা বলছি এমন একটি পরিবারের কথা যেখানে তাদের দুই সন্তান একের পর এক সরকারি চাকরিতে সাফল্য লাভ করেছে। কারণ সেই পরিবার এমন কিছু শিক্ষিত পরিবার নয়। সেই পরিবারের দুই ভাই হলেন রাকেশ কুমার টানান ও মহেন্দ্র কুমার টানান। তাদের বাবার নাম মতিলাল, যিনি পেশায় কৃষক এবং মা কমলা দেবী শিক্ষিত না হয় বাড়ির কাজেই দেখাশোনা করতেন। তাদের এক বোন হলো প্রিয়াঙ্কা, বোন বিবাহিত, স্বামী পেশায় ডাক্তার।

এবার আসা যাক দুই ভাইয়ের কথায়, দুই ভাই অত্যন্ত মেধাবী এবং প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার প্রস্তুতি শুরু করেছিলেন অত্যন্ত মনোযোগসহকারে। তারা নিজের পড়াশোনা নিয়ে যথেষ্টই সজাগ, যে কারণে বড় ভাই রাকেশ কুমার এখন অব্দি এগারটি চাকরিতে সাফল্য পেয়েছেন এবং ছোট ভাইও ৬ টি সরকারি কাগজপত্রে পাস করেছেন। বড় ভাই বর্তমানে সিকারে চাকরিতে যোগদান করেন। ছোট ভাই মহেন্দ্র কুমার টানানও সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মচারী।

দুই ভাই ঘন্টার পর ঘন্টা পড়াশোনায় মগ্ন থাকতেন, বাড়িতে খাওয়া দাওয়ার শেষে ঘরের দরজা বন্ধ করে ঘন্টার ঘন্টা পড়াশোনা করতেন। যার ফলাফল আজ হাতেনাতে পাচ্ছেন তাঁরা, তাঁরা আর সমস্ত চাকরিপ্রার্থীদের জন্য বারবার একটি কথাই বলেছেন তা হল, সোশ্যাল মিডিয়া থেকে নিজেকে বিরত রাখুন। নিজেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যস্ত করে রাখবেন না। আজ তারা নিজেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যস্ত করে রাখেননি বলে এক উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ তাদের সামনে। তারা পড়াশোনা করে নোট তৈরি করতেন সেই নোটই ছিল তাদের দুভাইয়ের পরার কৌশল। যে কারণে তাঁরা বারবার অন্যান্য চাকরিপ্রার্থীদের নোট তৈরির পরামর্শ দিচ্ছেন, আশা করা যায় এই টিপসে অনেকেই উপকৃত হবেন।