আপনি সংক্রমণের শিকার দেখুন কিভাবে বুঝবেন

51
আপনি সংক্রমণের শিকার দেখুন কিভাবে বুঝবেন

করোনা নিয়ে এখন সবাই আতঙ্কের মধ্যে দিন যাপন করছে। এই অদৃশ্য মারণ ভাইরাসে এখন সবাই গৃহবন্দী। বিভিন্ন দেশে চলছে মৃত্যু মিছিল। কোনোভাবেই এই ভাইরাসের সংক্রমণ আটকানো যাচ্ছে না। বিশ্বের সব জায়গায় এখন লক ডাউন কিন্তু আক্রান্তের সংখ্যা কিন্তু কম হওয়ার নাম নেই। তাহলে আর কি উপায়। মানুষ কোনোভাবেই বুঝে উঠতে পারছে না, এখন কি করা যেতে পারে। কারণ এর ভ্যাকসিন আসতে ১২-১৮ মাসের সময় চেয়েছে বিজ্ঞানীরা। তাই এখন এর থেকে বাচার উপায় একটাই স্যোশাল ডিস্টেন্সিং বজায় রাখা। তার জন্য মানুষ বাড়ির মধ্যে। সবাই এখন ওয়ার্ক ফর্ম হোমকেই বেছে নিয়েছে। এদিকে ডাক্তার, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীরা নিজেদের কথা চিন্তা না করে সর্বদা কাজের লেগে রয়েছে। চালানো হচ্ছে বিভিন্ন রাজ্যে রাজ্যে টেস্ট,র্যা পিড টেস্ট পর্যন্ত করা হচ্ছে কিছু কিছু জায়গায়।

এবার আই সি এম আর একটি তথ্য প্রকাশ করেছে, যা শুনে গায়ের রক্ত হীম হবার জোগাড়। তারা জানিয়েছে এখন যাদের দেহে করোনার কোনো ধরনের উপসর্গ নেই, তাদের টেস্ট করালে ৮০% মানুষের দেহে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যাবে। তাহলে এখন উপায়। মানুষ লক ডাউন চলার মাঝেই জরুরি সব জিনিস পত্র কেনার জন্য বাইরে বের হচ্ছে, এখন সেখানেও এক উপসর্গহীন করোনা রোগী থাকতেই পারে, যা খুবই ভয়ঙ্কর একটা ব্যাপার।

তাহলে এখন উপায়, কিভাবে তাহলে বোঝা যাবে যে, আপনি করোনায় সংক্রামিত কিনা? আমরা প্রাথমিকভাবে যা জানি , যে করোনার সাধারণ লক্ষণ জ্বর, সর্দি, কাশি, শ্বাস কষ্টের মতো কিছু উপসর্গ। তাই বলা হচ্ছে আপনার যদি এমন কোনো লক্ষণ থাকে তাহলে একেবারেই দেরি করবেন না, স্বাস্থ্যকেন্দ্রে গিয়ে নিজের চেক আপ করিয়ে নিন। এবার আপনি বাইরে বের হয়ে যদি মনে হয় করোনা রোগীর সংস্পর্শে এসেছেন, কিন্তু দেহে আপনার কোনও লক্ষণ নেই, তাহলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব চেক আপ টেস্ট করিয়েই নেওয়াই ভালো। কারণ আই সি এম আরের তথ্য হিসেবে যাদের দেহে উপসর্গ নেই, তাদের মধ্যে ৮০% মানুষের করোনা পজিটিভ।

এরপরে যদি দেখা যায় আপনার রিপোর্ট পজিটিভ, তাহলে কোনোভাবেই দেরি না করে ভর্তি হয়ে যান নিকটবর্তী করোনা সেন্টারে। আর আপনার পরিবারকেও মেনে চলতে বলুন বিভিন্ন নিয়ম বিধি, যা আই সি এম আর ও হুয়ের তালিকায় উল্লেখ করা আছে। এদিকে এতেই ভয় পাওয়ার কোনো দরকার নেই। আপনাকে নিয়ম মেনে চলতে হবে। অনেক সময় রিপোর্ট নেগেটিভও আসে, অর্থাৎ প্রথম ২ টিতে পজিটিভ আসলেও, তৃতীয়টায় নেগেটিভ আসলেই চিন্তা মুক্ত। কিন্তু তার মানেই ভেবে নেবেন না আপনি সুস্থ, আপনাকে নিয়ম মেনে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।ও বিভিন্ন নিয়ম কানুন মেনে চলতে হবে।