জাল ডেথ সার্টিফিকেট বানিয়ে কৃষকবন্ধু প্রকল্পের টাকা তুলছে তৃণমূল! অভিযোগ বিজেপির

8
জাল ডেথ সার্টিফিকেট বানিয়ে কৃষকবন্ধু প্রকল্পের টাকা তুলছে তৃণমূল! অভিযোগ বিজেপির

এবার জাল ডেথ সার্টিফিকেট বানিয়ে কৃষকবন্ধু প্রকল্পের নামে টাকা তুলে আর্থিক তছরুপের অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। এই আর্থিক প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে উত্তর ২৪ পরগনার দেগঙ্গায়। পঞ্চায়েত প্রধান উমা দাসের বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি কৃষক বন্ধু প্রকল্পের টাকা তোলার জন্য নিজের সই নিজেই জাল করাচ্ছেন। পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ এনেছে বিরোধী বিজেপি শিবির। কাটমানির টাকা তুলতেই ওই পঞ্চায়েত প্রধান এমন কাজ করছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

বিজেপি শিবিরের অভিযোগ, নুরনগর গ্রাম পঞ্চায়েতে প্রধানের সই জাল করে ভুয়ো ডেথ সার্টিফিকেট বের করে আনা হচ্ছে। তৃণমূল শিবিরের একাংশ জড়িত রয়েছে এই কাজের সঙ্গে। পঞ্চায়েত প্রধান উমা দাস নিজেই এর সঙ্গে জড়িত। মৃত ব্যক্তির বয়স কম দেখানো হচ্ছে। কাটমানির বিনিময় জাল শংসাপত্র তুলে দেওয়া হচ্ছে প্রতারকদের হাতে। ১৮ থেকে ৬০ বছর বয়সী কোনও কৃষকের মৃত্যু হলে তার পরিবার সরকারের তরফ থেকে কৃষক বন্ধু প্রকল্পের আওতায় ২ লক্ষ টাকা অনুদান পায়।

একাধিক মৃত ব্যক্তির বয়স কম দেখিয়ে ভুয়ো ডেথ সার্টিফিকেট বার করা হচ্ছে এই টাকা তোলার জন্য। এমনকি ১৫ বছর আগে মৃত্যু হয়েছে, এমন কৃষকে নামেও টাকা তোলা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিজেপি শিবিরের দাবি, ১৬ জন এইভাবে কৃষকবন্ধু প্রকল্পের টাকা তুলেছেন। স্থানীয় বিজেপি নেতা দাবি করছেন, পঞ্চায়েত প্রধানের মদতেই তার সই জাল করা হয়েছে। এখন ধরা পড়ে গিয়ে অন্যের ঘাড়ে দোষ চাপানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।

বিজেপির এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অবশ্য সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ওই পঞ্চায়েত প্রধান। যদিও বিজেপি তাদের দাবিতে অনড়। বিজেপির দাবি, ঘটনার সঙ্গে যদি পঞ্চায়েত প্রধান জড়িত না থাকেন তাহলে প্যাড, স্ট্যাম্প তারা কোথা থেকে পেল? উল্লেখ্য, এর আগে কন্যাশ্রী, রূপশ্রী সহ রাজ্য সরকারের প্রস্তাবিত একাধিক প্রকল্পের টাকাও ঠিক একইভাবে আর্থিক তছরুপের অভিযোগ উঠেছিল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। কৃষক বন্ধু প্রকল্পও এই প্রতারণার তালিকা থেকে বাদ থাকলো না।