আজকের বৈঠক কেন্দ্রের কাছে শেষ সুযোগ হবে! জানালো বিক্ষোভরত কৃষকরা

7
আজকের বৈঠক কেন্দ্রের কাছে শেষ সুযোগ হবে! জানালো বিক্ষোভরত কৃষকরা

সারা দেশ জুড়ে কৃষক আন্দোলন এখন ব্যাপক রূপ ধারণ করেছে। এই আন্দোলনের আঁচ স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীকেও যেন নাড়া দিয়ে গিয়েছে। কেন্দ্রের সঙ্গে শর্তসাপেক্ষে বৈঠকে বসতে কোনো মতেই রাজি নন সর্বভারতীয় কৃষক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। আজ বৈঠকের শেষ দিন। কেন্দ্রের প্রস্তাবিত নতুন কৃষি আইনের বিরোধীরা বিগত প্রায় এক সপ্তাহ ধরে দিল্লির রাস্তায় রাস্তায় অবস্থান বিক্ষোভে বসেছেন। কেন্দ্রের প্রতি তাদের সাফ বার্তা, আজকের বৈঠক কেন্দ্রের কাছে শেষ সুযোগ হবে!

কৃষক সংগঠনের তরফ থেকে কেন্দ্রীয় সরকারকে রীতিমতো হুঁশিয়ারি দিয়ে জানানো হয়েছে, আজকের বৈঠকে নতুন কৃষি আইন বাতিল সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে যদি কেন্দ্র কোনো সিদ্ধান্ত না নেয়, তাহলে অদূর ভবিষ্যতে সারা রাষ্ট্র জুড়ে কৃষকদের বিক্ষোভের সম্মুখীন হতে হবে কেন্দ্রীয় সরকারকে। কৃষক সংগঠনের দাবি অনুযায়ী, আজকের বৈঠকেই এই “কালাকানুন” রদ সম্পর্কে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে হবে কেন্দ্রকে।

সংসদের জরুরী অধিবেশন ডেকে অবিলম্বে “কেন্দ্রীয় কৃষি আইন ২০২০” রদ করতে হবে, নতুবা সর্বভারতীয় কৃষক সংগঠনের বিক্ষোভের সম্মুখীন হতে হবে! এমনই বার্তা দিয়েছেন কৃষকেরা। উল্লেখ্য, কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে অবশ্য কৃষকদের বিক্ষোভ প্রদর্শনকে শুধুমাত্র কয়েকটি রাজ্যের মধ্যেই সীমিত হিসেবে উল্লেখ করে কৃষকদের মধ্যে একটি বিভাজন তৈরি করার প্রচেষ্টা চলছে। কিন্তু কেন্দ্রের এই ষড়যন্ত্র মানতে নারাজ কৃষক সম্প্রদায়।

সর্বভারতীয় কৃষক সভার এক নেতার বক্তব্য অনুসারে, সারা দেশের কৃষক, ক্ষেতমজুর এই মুহূর্তে নতুন কেন্দ্রীয় কৃষি আইনের বিরুদ্ধে। সরকার যদি এই বিক্ষোভকে শুধুই “পাঞ্জাব এবং হরিয়ানার কৃষক আন্দোলন” হিসেবে উল্লেখ করে কৃষকদের মধ্যে বিভাজন ঘটানো চেষ্টা করে, তাহলে তা কেন্দ্রের সবথেকে বড় ভুল হিসেবে প্রমাণিত হবে। কেন্দ্রীয় কৃষি আইনের বিরুদ্ধে সারা ভারতের কৃষকেরা ঐক্যবদ্ধ। এমতাবস্থায় আজকের বৈঠকের পর কৃষকদের বিক্ষোভ এবং কেন্দ্রীয় কৃষি আইন নিয়ে সরকারের অবস্থান কোন দিকে মোড় নেয়, তা জানতে উদগ্রীব সারা রাষ্ট্র।