শিশুদের কাছে হাসি বিক্রি করে চলেছে এই মহিলা

8
শিশুদের কাছে হাসি বিক্রি করে চলেছে এই মহিলা

বর্তমান ইঁদুর দৌড়ের যুগে মুখের হাসি কি মিলিয়ে যেতে বসেছে? সারাদিন কাজের চাপে বিধ্বস্ত থাকেন বড়রা। ছোটরাও আজ কাল বাড়িতেই বন্দি। বন্ধুদের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ নেই, ক্লাবে অথবা পার্কে গিয়ে খেলাধুলাও বন্ধ। এই সময় যদি শরীর খারাপ থাকে তাহলে স্বাভাবিকভাবেই মন তো আরো খারাপ হতে বাধ্য। তবে ছোটদের মুখে হাসি ফোটানোর দায়িত্ব নিয়ে নিয়েছেন দিল্লির ক্লাউন সেলসের সদস্যরা।

শীতল আগারওয়াল, দিল্লির ক্লাউন সেলসের একজন সদস্য। প্রতিদিন সকালে উঠে তিনি রঙিন পরচুলা পড়ে এবং নাকে গালে লাল রং মেখে রাস্তায় বেরিয়ে পড়েন। একেবারে জোকারের ছদ্মবেশে রঙিন সাজে সেজে তিনি উপস্থিত হন দিল্লির বিভিন্ন হাসপাতালে। এই ক্লাউন সেলসের সদস্যদের কাজ হল হাসপাতালে ভর্তি ছোট ছোট বাচ্চাদের মুখে হাসি ফোটানো।

একেকদিন দিল্লির এক একটি হাসপাতালে টহল দেন শীতলরা। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছোট ছোট শিশুরা তাদের এক নজর দেখলেই খুশি হয়ে ওঠে। আনন্দে হাসি ফোটে তাদের মুখে। সেই হাসিই শীতল এবং তাদের সংস্থার অন্যান্য সদস্যদের পাওনা। জোকারের ছদ্মবেশে রোজ এভাবেই শিশুদের কাছে হাসি বিক্রি করে চলেছেন ক্লাউন সেলসের সদস্যরা। তাদের এমন উদ্যোগকে কুর্নিশ জানাচ্ছেন দিল্লিবাসী।