এবার অভিনব উপায়ে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর বিরোধিতা করলো বিজেপি, মুখ্যমন্ত্রীর ঠিকানায় পাঠালেন একটি আস্ত রামায়ণ

7
এবার অভিনব উপায়ে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর বিরোধিতা করলো বিজেপি, মুখ্যমন্ত্রীর ঠিকানায় পাঠালেন একটি আস্ত রামায়ণ

“জয় শ্রী রাম” স্লোগান নিয়ে রাজ্য রাজনীতি রীতিমতো উত্তাল। বিজেপি সমর্থকদের এই ধর্মীয় স্লোগানে কার্যত বেজায় অপমানিতা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বোসের ১২৫তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল হলে আয়োজিত অনুষ্ঠান মঞ্চে ধর্মীয় স্লোগান দেওয়ার ঘোর বিরোধিতা করে ভাষণ মঞ্চ পরিত্যাগ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূলীয় সমর্থকদের দাবি সরকারি অনুষ্ঠান মঞ্চে ধর্মীয় স্লোগান তুলে কার্যত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে অপমান করা হয়েছে।

তবে তৃণমূলের এই দাবি মানতে নারাজ বিজেপি সমর্থকরা। তাদের পাল্টা দাবি, “জয় শ্রী রাম” স্লোগানের বিরোধিতা করে কার্যত বাংলার মাটিতে ভগবান শ্রী রামের অপমান করছেন মুখ্যমন্ত্রী! রাজ্যের রাজনীতি পেরিয়ে এই ঘটনার আঁচ গিয়ে পৌঁছেছে সর্বভারতীয় স্তরে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকেই মুখ্যমন্ত্রীর এই অবস্থানের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানো হচ্ছে। তবে মধ্য প্রদেশ থেকে এক অভিনব উপায়ে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর বিরোধিতা করা হলো।

মধ্যপ্রদেশের প্রোটেম স্পিকার তথা বিজেপি নেতা রামেশ্বর শর্মা মুখ্যমন্ত্রীর ঠিকানায় একটি আস্ত রামায়ণ পাঠিয়ে দিয়েছেন! তিনি মনে করেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর রামায়ণ পড়া উচিত। তিনি যেভাবে রামের অপমান করছেন, তা কোনোভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়। হরিয়ানার স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা অনিল ভিজও বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে বলেছেন, তার সামনে “জয় শ্রী রাম” স্লোগান দেওয়া মানে ষাঁড়কে লাল কাপড় দেখে ক্ষেপিয়ে তোলা!

বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়র দাবি, রাজ্যের ৩০ শতাংশ ভোটারকে খুশি করার জন্যই এদিন এই স্লোগানের বিরোধিতা করে ভাষণ মঞ্চ পরিত্যাগ করেছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী! এভাবে তিনি কার্যত নেতাজিকেই অপমান করেছেন! তবে তৃণমূলের পাল্টা দাবিকেই সমর্থন জানিয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী এবং বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু। বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্যও এই ঘটনাকে (সরকারি মঞ্চে ধর্মীয় স্লোগান দেওয়ার ঘটনা) “অনভিপ্রেত” বলেই মন্তব্য করেছেন।