এবার মোদি সরকারকে উৎখাত করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে রাজনীতির ময়দানে এগোচ্ছেন মমতা

5
এবার মোদি সরকারকে উৎখাত করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে রাজনীতির ময়দানে এগোচ্ছেন মমতা

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের লক্ষ্য এখন ২০২৪ এর লোকসভা নির্বাচন! মোদি সরকারকে সিংহাসনচ্যুত করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়েই রাজনীতির ময়দানে এগোচ্ছেন তৃণমূল সুপ্রিমো। শত্রুর শত্রু আমার মিত্র, এই নীতি নিয়েই কার্যত মোদি সরকারের বিরোধীদের একত্রে নিয়ে লড়াইয়ে শামিল হওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মুখ্যমন্ত্রী এই লড়াইয়ের প্রধান যোদ্ধা হিসেবে ব্যবহার করতে চাইছেন দিল্লির সিংঘু সীমান্তে ধর্নায় রত কৃষকদের! বিগত বেশ কয়েক মাস ধরে দিল্লি সীমান্তে নিজেদের দাবিতে অনড় কৃষকেরা। মোদি সরকারের প্রবর্তিত নতুন কৃষি আইনের বিরোধিতা করছেন তারা। যতদিন না মোদি সরকার এই আইন পুরোপুরি প্রত্যাহার করছে, ততদিন বিক্ষোভ অবস্থান থেকে সরে আসবেন না তারা। কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সম্প্রতি নবান্নে একটি সাংবাদিক বৈঠক এর আয়োজন করে সিঙ্গুর–নন্দীগ্রাম আন্দোলনের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন যে, কৃষকদের এই লড়াইয়ে পাশে রয়েছে তৃণমূল। কৃষক আন্দোলনকে আরও জোরদার করার পক্ষে সওয়াল করেছেন তিনি। এই মর্মে অন্যান্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গেও তিনি কথা বলতে চান।

এ প্রসঙ্গে সাংবাদিকরা যখন তাকে প্রশ্ন করেন যে, আপনি কি আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে ইউপিএ কে নেতৃত্ব দেবেন? তখন তার পরিপ্রেক্ষিতে মুখ্যমন্ত্রীর জবাব, “আমি শুধু মোদি সরকারকে তাড়াতে চাই”! প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আসন্ন ২০২৪ এর লোকসভা নির্বাচনে লড়াইয়ের প্রস্তুতি এখন থেকে নিতে শুরু করে দিয়েছে তৃণমূল। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নিযুক্ত করেই কার্যত লড়াইয়ের সূত্রপাত। ২৪ এর লড়াইয়ে কৃষক সংগঠন যদি তাকে সমর্থন করে, তাহলে মোদি সরকারের বিরুদ্ধে তার অবস্থান আরো মজবুত হবে। এই মর্মেই লড়ছেন তৃণমূল সুপ্রিমো।