এবার, সমাজে নারীর অবস্থান সম্পর্কে একাধিক প্রশ্ন নিয়ে দর্শকদের সামনে উপস্থিত হচ্ছে “মহামায়া”

6
এবার, সমাজে নারীর অবস্থান সম্পর্কে একাধিক প্রশ্ন নিয়ে দর্শকদের সামনে উপস্থিত হচ্ছে

আর দুদিন পরেই “মহালয়া”। পিতৃপক্ষের অবসান হয়ে শুরু হবে মাতৃ বন্দনা। “মহালয়া” উপলক্ষে বিভিন্ন টিভি চ্যানেল গুলিতে এদিন ভোর থেকেই শুরু হয়ে যাবে দেবী বন্দনা। সাবেকি ঐতিহ্য ধারণ করে, প্রত্যেক বাঙালি বাড়িতে এদিন ভোরে রেডিয়োতে শোনা যাবে প্রায় ৮৭ বছরের পুরনো কিন্তু এখনো সমানভাবে জনপ্রিয় বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রের “মহিষাসুরমর্দিনী”। ভোর চারটের সময় বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্র উদাত্ত কণ্ঠে গেয়ে উঠবেন “আশ্বিনের শারদ প্রাতে, বেজে উঠেছে আলোক মঞ্জীর….”

রেডিও এবং টিভি চ্যানেলের পাশাপাশি এবার অনলাইনেও মুক্তি পাচ্ছে মহালয়া। জারেক এন্টারটেইনমেন্টের প্রযোজনায় প্রযোজনায়, দর্শকদের জন্য এক নতুন চিন্তা ধারা নিয়ে, নতুন আঙ্গিকে সেজে উঠেছে জনপ্রিয় টিভি অভিনেত্রী এনা সাহার “মহামায়া”। দেবী দুর্গা শক্তিরূপে পূজিতা। শক্তিরুপে যেখানে নারীর পূজা করা হয়, সেখানে সমাজে বারবার কেন নারীকে হেনস্তার শিকার হতে হয়, এই প্রশ্ন নিয়েই দর্শকদের সামনে উপস্থিত হচ্ছে “মহামায়া”।

“মহামায়া” অনুষ্ঠানে মাধ্যমে সমাজের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা, “লিঙ্গ বৈষম্য” নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন নির্মাতারা। আধুনিক যুগেও কেন কন্যা ভ্রুণ হত্যা, বধূ নির্যাতন, রাতে বাড়ি ফেরার সময় হেনস্থা, এমনকি কর্মক্ষেত্রেও নানাভাবে অপদস্থ হওয়ার মতো ঘটনার সম্মুখীন হতে হয় মহিলাদের, সে সম্পর্কে প্রশ্ন তুলেছেন “মহামায়া”। সমাজের এই লিঙ্গবৈষম্যতার বিরুদ্ধেই আওয়াজ তুলেছেন টেলি অভিনেত্রী এনা সাহা।

“মহামায়া”র অপর একটি চমক হলো, এই অনুষ্ঠানে দেবী দুর্গার ভূমিকায় অভিনয় করেছেন এক পুরুষ শিল্পী। পরিচালক অমিত বিট্টু দে দেবী দুর্গার ভূমিকায় বেছে নিয়েছেন অভিনেতা গৌরবকে। মহিষাসুরের ভূমিকায় অভিনয় করছেন দীপায়ন ঘোষ। এছাড়াও এক বিশেষ চরিত্রে অভিনয় করছেন সনাতন রুদ্র পাল। অনুষ্ঠানের চিত্রনাট্য তৈরি করেছেন রাহুল রায়। সঙ্গীত পরিচালনায় ডিজে আলভি। ক্যামেরায় সুজয় দাসের সহযোগিতায় এবং প্রণয় দাশগুপ্তের সম্পাদনায় বৃহস্পতিবার সকালে দর্শকদের জন্য একেবারে নতুন আঙ্গিকে হাজির হবে “মহামায়া”।