এবার দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন গাইঘাটার তৃণমূলীয় বিধায়ক পুলিনবিহারী রায়

8
এবার দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন গাইঘাটার তৃণমূলীয় বিধায়ক পুলিনবিহারী রায়

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে রাজ্যের রাজনীতিজুড়ে দলবদলের মরশুম চলছে। সেই মরশুমেই রাজ্য শাসকদলের অভ্যন্তরীণ একাধিক “বেসুরো” নেতাকর্মীদের ক্ষোভ প্রকাশ্যে এসেছে। গাইঘাটার তৃণমূলীয় বিধায়ক পুলিনবিহারী রায়ও এবার দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন। তার প্রতি শাসকদলের এবং শাসক দলের প্রতি তার অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। তার অভিযোগ, দলে তাকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে না!

অপরপক্ষে তার প্রতি শাসক দলের অভিযোগ, তিনি নিজের দায়িত্ব ঠিকভাবে পালন করছেন না! এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিনবিহারী রায়ের বক্তব্য, তাকে দলে মর্যাদা দেওয়া হয় না, দলীয় কর্মসূচিতেও ডাকা হয় না। এ সম্পর্কে দলীয় কর্মীদের নাম না করে তার অভিযোগ, বিধানসভা কমিটির চেয়ারম্যান হওয়া সত্ত্বেও তাকে ব্লক সভাপতি বা অঞ্চল সভাপতি নিয়োগ করার ক্ষমতা দেওয়া হয়নি।

এখানেই শেষ নয়, দলীয় কর্মীদের বিরুদ্ধে আরও গুরুতর অভিযোগ করেছেন তিনি। তার হাত থেকে মাইক কেড়ে নেওয়া হয়েছে, তাকে কটুক্তি করা হয়েছে, প্রতিনিয়ত অপমানের সম্মুখিন হতে হয়েছে, হুমকিও দেওয়া হয়েছে! এমনতর বিভিন্ন অভিযোগ এনেছেন তিনি শাসকদলের স্থানীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। তিনি জানাচ্ছেন, তার প্রতি হওয়া অন্যায়ের বিরুদ্ধে তিনি ২০১৯ সালে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে অভিযোগ করেছিলেন। তবে তাতে লাভ কিছু হয়নি।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গাইঘাটার মতুয়া সম্প্রদায়ের ভোট রাজনৈতিক ভোট মঞ্চে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচন থেকে শিক্ষা নিয়ে রাজ্য শাসকদের এই মুহূর্তে মতুয়াদের মন পাওয়ার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। এমতাবস্থায় এলাকার অনুন্নয়ন প্রসঙ্গে গাইঘাটার বিধায়কের বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ রয়েছে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি এলাকার উন্নয়নে বিশেষ কোনো ভূমিকা পালন করেননি। এমনকি এলাকার উন্নয়ন সংক্রান্ত ৯০ শতাংশ কাজ পঞ্চায়েত সমিতির তরফ থেকেই করা হয়েছে, এমন দাবিও উঠছে। গাইঘাটার বিধায়ক অবশ্য সেই দাবি মানতে নারাজ।