এবার ধূপগুড়ির তৃণমূল বিধায়ক মিতালি রায়ের বিরুদ্ধেও উঠলো চাকরির টোপ দিয়ে টাকা নেওয়ার অভিযোগ

11
এবার ধূপগুড়ির তৃণমূল বিধায়ক মিতালি রায়ের বিরুদ্ধেও উঠলো চাকরির টোপ দিয়ে টাকা নেওয়ার অভিযোগ

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের পূর্বেই ফের মুখ পুড়লো রাজ্য শাসকদলের। রাজ্য শাসকদলের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে বহুবার টাকার বিনিময় সরকারি চাকরি প্রদান বিশেষত শিক্ষক নিয়োগ করার অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি ফের একই অভিযোগ উঠলো ধূপগুড়ির তৃণমূল বিধায়ক মিতালি রায়ের বিরুদ্ধে। চাকরি দেওয়ার প্রলোভনে মিতালী রায় অন্তত ১৩ জনের থেকে ৮৩ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

তৃণমূল বিধায়কের বিরুদ্ধে এই মারাত্মক অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রবিবার ধুপগুড়িতে এসএফআই এবং ডিওয়াইএফআইয়ের সদস্যরা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। অভিযুক্ত ওই তৃণমূল বিধায়কের কুশপুতুল দাহ করে বিক্ষোভ দেখান তারা। অন্যদিকে একই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এদিন শহরজুড়ে বিজেপি সমর্থকরা তৃণমূল বিধায়কের বিরুদ্ধে ধিক্কার মিছিল বের করেন।

২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে প্রাথমিক শিক্ষক ও জলসম্পদ বিভাগে চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে সাধারণের থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে মিতালী রায়ের বিরুদ্ধে। তৃণমূলের এক প্রাক্তন পঞ্চায়েত প্রধানও তার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগকারীদের দাবি, তাদের কলকাতায় নিয়ে গিয়ে বিকাশ ভবন এবং জলসম্পদ ভবনে ইন্টারভিউও নেওয়া হয়েছিল।

এরপর কয়েক জনকে প্রাথমিক শিক্ষক পদের নিয়োগ পত্র দেওয়া হয়। সবটাই হয়েছিল টাকার বিনিময়ে। পরে অবশ্য সেই নিয়োগপত্র জাল বলে প্রমাণিত হয়। সেই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এবং টাকা ফেরত চেয়ে তৃণমূল বিধায়কের বাড়িতে চড়াও হন অভিযোগকারীরা। তবে তাদের বারবার ঘোরানো হয়। পরে ২০২০ সালের এপ্রিল মাসে কয়েকজনকে চেকের মাধ্যমে টাকা ফেরত দেওয়া হলেও সেই চেক ব্যাংকে বাউন্স করে।