এবার নেপোটিজম নিয়ে মুখ খুললেন পরিচালক অঞ্জন চৌধুরীর কন্যা চুমকি চৌধুরী

28
এবার নেপোটিজম নিয়ে মুখ খুললেন পরিচালক অঞ্জন চৌধুরীর কন্যা চুমকি চৌধুরী

বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর নেট দুনিয়া সরব হয়ে উঠেছিল নেপোটিজম বিতর্কে। নেপোটিজম তথা স্বজনপোষণের জন্যেই সুশান্তের মত প্রতিভাবান অভিনেতা-অভিনেত্রীরা গ্ল্যামার দুনিয়ায় বঞ্চিত থেকে যান! নেটিজেনরা এই কথা এক বাক্যে স্বীকার করে নিয়েছিলেন। এবার নেপোটিজম প্রসঙ্গে মুখ খুললেন টলিউড পরিচালক অঞ্জন চৌধুরীর কন্যা চুমকি চৌধুরী।

সম্প্রতি টেলিভিশনের জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো দিদি নাম্বার ওয়ানের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছিলেন চুমকি চৌধুরী। নব্বইয়ের দশকের অভিনেত্রী তিনি। তিনি জানাচ্ছেন, অভিনয় তার প্যাশন কোনদিনই ছিল না। তিনি বরাবর শিক্ষিকা হতে চেয়ে ছিলেন। তা না হলে বিয়ে করে সুখে ঘর সংসার করতে চেয়েছিলেন। তবে পরিচালক বাবার হাত ধরে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে নামেন তিনি।

চুমকি জানাচ্ছেন, তিনি মনে করেন তার বাবা না থাকলে অর্থাৎ তিনি অঞ্জন চৌধুরীর মেয়ে না হলে তার অভিনীত ছবি দর্শক গ্রহণ করতেন না। তিনি নিজেকে একজন “বাজে অভিনেত্রী” হিসেবেই রেটিং দিয়ে থাকেন। প্রসঙ্গত, চুমকি চৌধুরী অভিনীত ‘মেজবউ’, ‘আব্বাজান’ , ‘হীরক জয়ন্তী’, “স্নেহের বন্ধন’ সিনেমাগুলি কিন্তু দর্শকদের মধ্যে ব্যাপকভাবে সমাদৃত হয়েছিল।

একসময় অভিনয় ছেড়ে টলিউডের অন্যতম সফল অভিনেতা লোকেশ ঘোষকে বিবাহ করে সংসার জীবন বেছে নেন চুমকি চৌধুরী। চুমকির পাশাপাশি ছোট মেয়ে রিনাকেও ইন্ডাস্ট্রিতে নিয়ে এসেছিলেন অঞ্জন চৌধুরী। তবে চুমকি ক্রমশ দর্শকদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন।