এবার ভারতীয় ভাষাকে হাতিয়ার করে সেনা বাহিনীর মনোবল ভাঙার চেষ্টা করছে চীন

6
এবার ভারতীয় ভাষাকে হাতিয়ার করে সেনা বাহিনীর মনোবল ভাঙার চেষ্টা করছে চীন

লাদাখে ভারত-চীন সীমান্ত সংঘাত অব্যাহত। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় নিজ অবস্থান থেকে সরতে নারাজ চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মি। সীমান্তে অনবরত উস্কানিমূলক কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছে চীনের লাল ফৌজ। তবে, সীমান্তে চীনকে প্রতিহত করতে সদা তৎপর ভারতীয় সেনাবাহিনী। ভারতীয় সেনাবাহিনীর তৎপরতায় ইতিমধ্যেই সীমান্ত থেকে পিছু হটতে বাধ্য হয়েছে চীন। সীমান্তে ভারতীয় সেনার মনোবল ভাঙতে তাই এবার নতুন কৌশল নিয়েছে চীনে ড্রাগনের দল।

ভারতীয় সেনাবাহিনী সূত্রে খবর, লাদাখের ফিঙ্গার পয়েন্ট চার এলাকায় লাউডস্পিকারে পাঞ্জাবি গান বাজাচ্ছে চীন। শুধু তাই নয়, হিন্দি ভাষায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর উদ্দেশ্যে প্ররোচনামূলক বার্তা দিয়ে তাদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে উস্কানি দেওয়া হচ্ছে। তার মর্মার্থ এই, ভারত সরকারের ভুল সিদ্ধান্তের কারণে প্রবল ঠান্ডার মধ্যে ও সীমান্ত পাহারা দিতে হচ্ছে ভারতীয় সেনাদের। ভারতীয় সেনাবাহিনী সূত্রে খবর, চীনের এই কার্যকলাপ প্রথম নয়।

এর আগেও, ১৯৬২ সালের ভারত-চীন সীমান্ত বিতর্কের সময়েও ভারতীয় সেনাবাহিনীকে এভাবেই প্ররোচিত করার চেষ্টা করেছিল চীন। তবে সেবার চীনের ফাঁদে পা দেয়নি ভারত। ভারতের এক প্রাক্তন সেনা প্রধানের বক্তব্য, অতীতে যেমন ভারতীয় সেনাবাহিনীর আত্মবিশ্বাসে চিড় ধরাতে পারেনি চীনের লাল ফৌজ, এবারেও পারবে না। উল্লেখ্য, সীমান্ত পরিস্থিতি বিবেচনা করে আরো বেশ কিছুদিন চীনের ওপর নজরদারি চালাতে হবে ভারতীয় সেনাবাহিনীকে।

ইতিমধ্যেই, শীতকালে লাদাখে থাকার জন্য যথাসম্ভব প্রস্তুতি নিতে শুরু করে দিয়েছে ভারতীয় সেনা। ভারতীয় সেনাদের জন্য সীমান্তে পৌঁছে যাচ্ছে রেশমের সরঞ্জাম সহ বিভিন্ন শীতের পোশাক। ফলে চীনের কাছে বেশ স্পষ্ট হয়ে গেছে যে, লাদাখের চরম শীতের মতো প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও চীনের বিরুদ্ধে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে থাকবে ভারত। তাই এবার ভারতীয় ভাষাকে হাতিয়ার করে সেনা বাহিনীর মনোবল ভাঙার চেষ্টা করছে চীন। তবে তাদের সেই উদ্দেশ্য সফল হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী।