এবার সাপে কাটা রোগীদের জন্য এক যুগান্তকারী ওষুধ আবিষ্কার করে ফেললো বাংলা

51
এবার সাপে কাটা রোগীদের জন্য এক যুগান্তকারী ওষুধ আবিষ্কার করে ফেললো বাংলা

বর্ষা এলেই গ্রামেগঞ্জে সাপের উপদ্রব বাড়ে। মানুষ এবং সাপেদের সহাবস্থানে প্রায়শই মানুষের উপর আক্রমণ চালিয়ে বসে বিষাক্ত সাপেরা। দ্রুত চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে না গেলে রোগীকে প্রাণে বাঁচানোই মুশকিল হয়ে পড়ে। তবে এবার সাপে কাটা রোগীদের জন্য এক যুগান্তকারী ওষুধ আবিষ্কার করে ফেললো বাংলা। এই ঔষধ কার্যত সাপে কাটা রোগীকে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করবে। আপাতত ট্রায়ালের পর্যায়ে রয়েছে এই ওষুধ।

এমন যুগান্তকারী আবিষ্কারটি করেছে ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল। এই হাসপাতালের তরফ থেকে জানানো হয়েছে যে গবেষণায় বানানো ওষুধ পি ল এ-২ ইনহিবিটারের ট্রায়াল শুরু হতে চলেছে। ন্যাশনাল মেডিক্যালের মেডিসিন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডাক্তার পার্থপ্রতিম মুখোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে পুজোর পর থেকেই কার্যত এই ওষুধের ট্রায়াল’ শুরু হবে বলে জানানো হয়েছে।

সাপে কাটার পর রোগীকে দেড় ঘণ্টার মধ্যেই চিকিৎসা পরিষেবা দিতে হয়। নতুবা তাকে বাঁচানো মুশকিল হয়ে পড়ে। প্রাথমিক ধাক্কা সামলানোর জন্য এতদিন ওষুধের সন্ধানে ছিলেন গবেষকেরা। এতদিনে সেই ওষুধের খোঁজ মিলেছে। সারা দেশের মধ্যে বাংলাই একমাত্র এই ওষুধ আবিষ্কার করতে পেরেছে। সারা বিশ্বজুড়ে চারটি দেশে এই ওষুধ নিয়ে গবেষণা চলছে বলে জানিয়েছেন বাংলার গবেষকেরা।

ইউরোপের গবেষকদের দাবি, সাপে কাটা ইঁদুরের শরীরে ভালো কাজ করেছে এই ওষুধ। তা থেকে মানুষের জন্যেও আশা দেখছেন ইউরোপীয় গবেষকেরা। DCGI এর অনুমোদন পেয়ে গিয়েছে এই ট্রায়াল’। এখন শুধু রাজ্য স্বাস্থ্যদপ্তরের এথিক্স কমিটির সবুজ সংকেতের অপেক্ষা। তারপরেই প্রাপ্ত বয়স্কদের শরীরে এই ওষুধের ট্রায়াল’ শুরু হবে বলে জানানো হয়েছে।