এবার জিন্নাহের নাম অনুসারে পানীয় তৈরি করলো পাকিস্তানের একটি সুরা প্রস্তুতকারী সংস্থা

7
এবার জিন্নাহের নাম অনুসারে পানীয় তৈরি করলো পাকিস্তানের একটি সুরা প্রস্তুতকারী সংস্থা

পাকিস্তানের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে মহম্মদ আলী জিন্নাহের অবদান অনস্বীকার্য। পাকিস্তানের এককালীন রাষ্ট্রনেতার সঙ্গে বহু বিতর্ক জড়িয়ে আছে। তিনি মুসলিম ধর্মাবলম্বিদের অধিকার নিয়ে লড়েছিলেন। তার নেতৃত্বেই হিন্দুস্তান থেকে বিচ্ছিন্ন হয়েছিল পাকিস্তান। মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা শান্তিতে বসবাসের জন্য তাদের নিজস্ব রাষ্ট্র পেয়েছিলেন। এহেন জিন্নাহ কিন্তু প্রচলিত মুসলিম রীতি-নীতির প্রতি তেমন আকৃষ্ট ছিলেন না!

ইসলাম ধর্ম বিরোধী বহু আচার আচরণ নিজের জীবন দশায় পালন করেছেন জিন্নাহ। ধর্মীয় রীতি নীতির বিরুদ্ধে তার সেই উদার মানসিকতাকে সম্মান জানালো এক পানীয় প্রস্তুতকারী সংস্থা। বিশিষ্ট সংবাদ মাধ্যম সূত্রে খবর, জিন্নাহের নাম অনুসারে পাকিস্তানের একটি সুরা প্রস্তুতকারী সংস্থা তাদের পানীয়ের নাম রেখেছে “জিন্নাহ”। পাকিস্তানের রাষ্ট্রনেতার প্রতি সম্মান প্রদর্শনের উদ্দেশ্যেই নাকি এমন অভিনব পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে!

উল্লেখ্য, পানীয়ের বোতলের লেবেলে আবার মহম্মদ আলী জিন্নাহের জীবন সম্পর্কে কিছু লেখাও রয়েছে। লেবেলের লেখা অনুযায়ী, পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ছিলেন বিলেত ফেরত ব্যারিস্টার। তার উদ্যোগে ১৯৪৭ সালে পাকিস্তানের উৎপত্তি হয়। জিন্নাহের জীবনযাত্রা সম্পর্কে কিছু লেখা রয়েছে সেখানে। সংস্থার তরফ থেকে প্রদত্ত তথ্য অনুযায়ী, মহাম্মদ আলী জিন্নাহ তার জীবদ্দশায় বিলিয়ার্ড খেলতে ভালোবাসতেন। ধুম্রপান, শুকরের মাংস দ্বারা নির্মিত সসেজ, হুইস্কি, স্কচ, জিনের মত পানীয় পান করতেন।

লেবেলে এও লেখা রয়েছে, মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ কখনো মসজিদে গিয়ে নামাজ পড়েন নি। ধর্মীয় রীতিনীতির উর্ধ্বে ছিলেন তিনি। বোতলের গায়ে জিন্নাহের নামের বানানটা অবশ্য একটু অন্যরকম ভাবে লেখা হয়েছে। Jinnah-এর বদলে Ginnah লেখা হয়েছে। অর্থাৎ জিন এবং জিন্নাহের সম্মেলনে এমন নামকরণ করা হয়েছে। হবে নাই বা কেন! মহাম্মদ আলী জিন্নাহ পাকিস্তানিদের কাছে “জিন” তথা দেবদূত স্বরূপই তো ছিলেন! তবে পানীয় সংস্থার এহেন উদ্যোগ যেমন অনেকেই সমর্থন করছেন, তেমন বহু মানুষকে এর বিরোধিতাও করতে দেখা দিয়েছে।