এক নির্জন দ্বীপে একাই ৩২ বছর কাটিয়ে এলেন এই ব্যাক্তি

34
এক নির্জন দ্বীপে একাই ৩২ বছর কাটিয়ে এলেন এই ব্যাক্তি

এমন একজন ব্যক্তির কথা যদি আপনাকে বলি যিনি নিজের জীবনের ৩২ টা বছর একটি নির্জন দ্বীপে কাটিয়ে এসেছেন তাহলে কি বলবেন আপনি। এটা কিন্তু কোন সিনেমার গল্প নয়। এই মানুষটির নাম মাওরও মরান্ডি। তিনি ইতালির একজন নাগরিক। আজ থেকে প্রায় ৩২ বছর আগে তিনি চলে এসেছিলেন নির্জন একটি দ্বীপে। আজ তার বয়স ৮২ বছর।

1989 সালে তিনি সিদ্ধান্ত নেন যে, তার জীবনের সমস্ত মোহ মায়া ত্যাগ করে তিনি চলে যাবেন নর্থ সারাদিনার আরেকটি দ্বীপপুঞ্জে। এখানে রয়েছে গোলাপি বালি। নির্জনতা যাদের প্রিয় তারা মাঝে মাঝে ঘুরে আসেন এই দ্বীপে। কিন্তু সারা জীবন থাকার জন্য কখনো মনে করে না কেউ। এই মানুষটি ছোট্ট নৌকা নিয়ে একাই পাড়ি দিয়েছিলেন এখানেই।

বড় বড় ঢেউ এর জন্য এই দ্বীপে যাওয়াটা খুব সহজ ছিল না তার কাছে। তবে এই দ্বীপপুঞ্জে গিয়ে তিনি একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে পরিচয় করেছিলেন। যাদের মধ্যে একজন ছিলেন এই দ্বীপের রক্ষণাবেক্ষণের কাজে নিযুক্ত। কিন্তু তার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবার সময় এসেছিল তখন। তিনি জানালেন যে তিনি মেয়াদ শেষ হলে চলে যাবেন এই দ্বীপ থেকে। তখন মোড়ান্ড জানান যে, তিনি দায়িত্ব নেবেন এই দ্বীপের সমস্ত রক্ষণাবেক্ষণের।

তারপর থেকে একাই তিনি এই নির্জনতাতে দিন কাটাচ্ছেন। এতগুলো বছর তার খবর যেমন কেউ রাখেনি সেই খবর রাখে নি কারোর। একাই দ্বীপ এর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার ভার নিজের কাঁধে তুলে রেখেছেন। বলাই বাহুল্য সেই কাজটি সুন্দরভাবে করে যাচ্ছেন তিনি। অবশেষে তার খোঁজ পাওয়া গেল পরিবেশপ্রেমী সংগঠনের এক কাজে নিযুক্ত হওয়াকিছু কর্মীর কাছ থেকে। তারা পরিবেশপ্রেমী সংগঠনের কাজে গিয়েছিলেন এই দ্বীপে।

সেখানে গিয়ে এক নির্জন দ্বীপে একজন মানুষকে দেখে ঘাবড়ে গিয়ে ছিলেন তারা। পরে তার সাথে কথা বলার পর জানা যায় যে, দীর্ঘ এতগুলো বছর তিনি একাই ছিলেন সেখানে রোদ জল ঝড় সবকিছু সামলে গুছিয়ে রেখেছে সবকিছু। সেই দ্বীপে এবার পরিবেশবিদরা কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজ করবেন তাই অবশেষে মাউরোকে এই দ্বীপ ছাড়তে হচ্ছে।

কর্তৃপক্ষের কথা মেনেই এই দ্বীপ ছেড়ে লোকালয়তে ফিরতে রাজি হয়েছেন সেই মানুষটি। স্থানীয় প্রশাসন তাকেই শহরের বাইরে কিছুটা নির্জন স্থানে থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। এতগুলো বছর একা একা কেমন লাগলো জিজ্ঞাসা করাতে তিনি বলেন, সমুদ্র দেখেই জীবন কেটে যেত। আমি এখন যেখানে থাকবো সেখানে থেকেও সমুদ্র দেখা যায়। বাকি জীবনটা এভাবেই কাটিয়ে দিতে চাই।