অস্ট্রেলিয়ায় ছোট্ট একটি বৃন্দাবন গড়ে তুলেছেন এই কৃষ্ণভক্ত! খোঁজ দিলেন প্রধানমন্ত্রী

11
অস্ট্রেলিয়ায় ছোট্ট একটি বৃন্দাবন গড়ে তুলেছেন এই কৃষ্ণভক্ত! খোঁজ দিলেন প্রধানমন্ত্রী

কৃষ্ণ প্রেমে অন্ধ ভক্ত। একবার যিনি ভগবান শ্রীকৃষ্ণের প্রেমে পড়েছেন, ইহজগত তার কাছে যেন স্বর্গ। তিনি প্রয়োজনে নিজের দেশ, পরিচিত জগত, পেশা এমনকি আপনজনদের ত্যাগ করে ভগবানের নাম নিয়ে বাকি জীবনটা কাটিয়ে দিতে পারেন। ভগবান শ্রীকৃষ্ণের এমনই এক পরম ভক্তের খোঁজ মিললো অস্ট্রেলিয়াতে। সেই খোঁজ দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

সম্প্রতি 83 তম ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী তার শ্রোতাদের কৃষ্ণভক্ত জগত্তারিণী দাসীর কথা জানিয়েছেন। যিনি এই মুহূর্তে রয়েছেন অস্ট্রেলিয়াতে। সেখানে তিনি গড়ে তুলেছেন ছোট্ট একটি বৃন্দাবন। সেখানে তিনি তার আরাধ্য দেবতা শ্রী কৃষ্ণের আরাধনা করেন। ভগবান শ্রীকৃষ্ণের সাধনাভূমি বিদেশের মাটিতে সযত্নে গড়ে তুলেছেন তার সাধিকা।

একসময় অস্ট্রেলিয়ার পর্দা কাঁপানো অভিনেত্রী ছিলেন তিনি। তবে 1983 সালে তিনি সবকিছু ছেড়ে দিয়ে সপরিবারে বৃন্দাবনে চলে আসেন। প্রকৃত শান্তি এবং সুখ তিনি সেখানেই খুঁজে পেয়েছিলেন। পরবর্তী 13 বছর তিনি বৃন্দাবনে ছিলেন। ভক্তিবেদান্ত গুরুকুলে পাঠ দান করতেন। অবসর সময়ে বৃন্দাবনের পবিত্র স্থান দর্শন করতেন। কৃষ্ণের সাধিকা হিসেবে বিলাসিতা ত্যাগ করেছিলেন তিনি। স্থানীয় পরিবহন ব্যবহার করে যাতায়াত করতেন।

এরপর 1996 সালে তিনি অস্ট্রেলিয়াতে ফিরে যান। সেখানে গিয়ে জগত্তারিণী দাসী নাম নিয়ে শ্রীকৃষ্ণের সেবায় নিজের জীবন উৎসর্গ করেন। তবে বৃন্দাবন আজীবন তার মনে থেকে গিয়েছে। তাই অস্ট্রেলিয়াতেই তিনি এক টুকরো বৃন্দাবন ধাম গড়ে নিয়েছেন। ছবি এঁকে মিনিয়েচার বা বিভিন্ন ত্রিমাত্রিক ভাস্কর্য গড়ে তিনি তার সাধের বৃন্দাবন সাজিয়েছেন। জগত্তারিণী দাসীর এমন অভিনব প্রচেষ্টাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।