৭১ এর এই মুক্তিযোদ্ধাকে পদ্মশ্রী দিয়েছে ভারত বীর প্রতীক সম্মান দিয়েছে বাংলাদেশও

12
৭১ এর এই মুক্তিযোদ্ধাকে পদ্মশ্রী দিয়েছে ভারত বীর প্রতীক সম্মান দিয়েছে বাংলাদেশও

৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের এক অন্যতম যোদ্ধা তিনি। বলতে গেলে ১৯৭১ সালের বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের কান্ডারী বলা যেতে পারে কাজি সজ্জাদ আলি জাহিরকে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনে যোগদান করবেন বলেই পাকিস্তান থেকে পালিয়ে ভারতে চলে আসেন তৎকালীন পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর উচ্চপদস্থ এই অফিসার! এরপর ভারতে থেকেই বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রশিক্ষক হয়ে ওঠেন তিনি।

১৯৬৯ সালে পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়েছিলেন কাজি সজ্জাদ আলি জাহির। পাক সেনার গোলন্দাজ বাহিনীতে উচ্চপদস্থ পদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল তাকে। পাকসেনারা কেমন ভাবে পূর্ব পাকিস্তানের উপর অত্যাচার চালায়, নিরীহ মানুষের উপর কেমন খুন-ধর্ষণের মতো নৃশংস অত্যাচার চালানো হয়, উচ্চ পদে বসে তিনি প্রতিনিয়ত তার সাক্ষী থেকেছেন।

এর পরেই তিনি পাকিস্তান ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। মাত্র ২০ টাকা সম্বল করে সেই সময় তিনি পাকিস্তান ছেড়ে চলে আসেন ভারতে। পাক সেনা বিভাগে কাজ করার সুবাদে বহু অজানা তথ্য জানা ছিল তার। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে তিনি সেই তথ্য তুলে ধরেন। যে কারণে বাংলাদেশের সরকার সাহসিকতার জন্য তাকে বীর প্রতীক সম্মানে ভূষিত করেছে। চলতি বছরে ভারত সরকারের তরফ থেকে তাকে দেওয়া হয়েছে পদ্মশ্রী পুরস্কার।

কিন্তু পাকিস্তানের কাছে তিনি অপরাধী। যে কারণে পাকিস্তান সরকার তাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে। কাজি সজ্জাদ আলি জাহির যেহেতু বর্তমানে ভারতের বাসিন্দা, তাই সেই সাজা কার্যকর করতে পারেনি পাকিস্তান। তবে তিনি ভারতে পালিয়ে আসার পর তার বাড়িঘর জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। তার মা এবং বোন কোনক্রমে পালিয়ে প্রাণে বাঁচেন। সেই দুর্বিষহ দিনের কথা স্মরণ করে ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে অন্ততপক্ষে ৫৪টি বই লিখেছেন এই মুক্তিযোদ্ধা।