বিষাক্ত লাল পিঁপড়ের চাটনি খাবারের জন্য জিআই তকমা পেতে চলেছে এই জেলা!

7
বিষাক্ত লাল পিঁপড়ের চাটনি খাবারের জন্য জিআই তকমা পেতে চলেছে এই জেলা!

বিষাক্ত লাল পিঁপড়ের চাটনির স্বাদ ওড়িশার ময়ূরভঞ্জ জেলাতে গেলেই পেতে পারেন। মূলত আদিবাসী অধ্যুষিত এই এলাকাতেই কাই চাটনি খাওয়ার চল রয়েছে। দেশের অন্য অংশের বাসিন্দারা নাক শিঁটকালেও এই চাটনি অত্যন্ত স্বাস্থ্যকর খাবার ময়ূরভঞ্জের মানুষের কাছে ।

ময়ূরভঞ্জের মানুষের মতে, কাই চাটনিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ক্যালশিয়াম, জিঙ্ক, ভিটামিন বি-১২, আয়রন, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম, সোডিয়াম, কপার, ফাইবার এবং ১৮ রকমের অ্যামিনো অ্যাসিড। জিভে জল আনা এই পিঁপড়ের চাটনি খেলে নাকি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ে।

এই পিঁপড়ে গোটা বছরই ময়ূরভঞ্জ এলাকায় দেখা যায়। গাছের পাতা দিয়ে তৈরি বাসায় খোঁজ মেলে এই বিশেষ প্রজাতির পিঁপড়ের। সেখান থেকেই পিঁপড়ে সংগ্রহ করে আনেন আদিবাসীরা। এর পর জলের মধ্যে গাছের পাতায় লেগে থাকা ওই পিঁপড়েগুলিকে ডুবিয়ে রাখা হয়। এর পর লার্ভা ও ডিম আলাদা করা হয়। হরেক রকম মশলার সঙ্গে সেগুলি বেটে তৈরি করা হয় কাই চাটনি। ওড়িশা ছাড়াও ছত্তিশগড় ও ঝাড়খণ্ডের বেশ কিছু অঞ্চলেও এই চাটনি খাওয়ার চল রয়েছে।

ময়ূরভঞ্জবাসীরা ইতিমধ্যেই জিআই ট্যাগ পাওয়ার জন্য আয়ুশ মন্ত্রকের কাছে চিঠি জমা করেছেন। এই আন্তর্জাতিক খ্যাতি লাভের পর এই চাটনি সারা বিশ্ব জুড়ে পরিচিতি পাবে। সেই সঙ্গে ময়ূরভঞ্জবাসীর ব্যবসায়িক উন্নতিও সম্ভব হবে বলে জানা গিয়েছে।