দিন দিন বিধবা পাড়ায় পরিনত হচ্ছে সুন্দরবনের এই গ্রামগুলি

56
দিন দিন বিধবা পাড়ায় পরিনত হচ্ছে সুন্দরবনের এই গ্রামগুলি

সুন্দরবনের হাজার হাজার মহিলা বাঘের আক্রমণে স্বামীকে হারিয়েছেন। পূর্ব ভারতের প্রায় ৪,২০০ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বিস্তৃত এই বদ্বীপ অঞ্চলে পৃথিবীর বৃহত্তম ম্যানগ্রোভের জঙ্গলটি অবস্থিত, আর বাঘ হল এই ম্যানগ্রোভ জঙ্গলের সমার্থক।

জঙ্গলেঘেরা সুন্দরবনে ছড়িয়ে ছিটিয়ে এই গ্রামের নাম ‘বিধবা গ্রাম’। ১১টি গ্রাম এই নামেই চিহ্নিত। আবার গ্রামেই রয়েছে বিধবা পাড়া। হিঙ্গলগঞ্জ, গোসাবা, কুলতলি, পাথরপ্রতিমা, বাসন্তী, ঝড়খালি, সন্দেশখালি ব্লকের বহু গ্রামে ঢুঁ মারলেই চোখে পড়বে বিধবা পাড়া। বেরঙিন সেই গ্রামে কেবল বিধবাদেরই ভিড়।

কিছু মানুষ সুন্দরবনে প্রকৃতির সঙ্গে নিয়ত সংগ্রামে বেঁচে আছে। জীবন-জীবিকার তাগিদে তারা প্রতিনিয়ত ছুটে যায় গহীন জঙ্গলে। আর সেখানেই মুখোমুখি হয় মৃত্যুর। প্রাণ যায় বাঘের থাবায়। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বছরে গড়ে প্রায় ১০০ পুরুষের মৃত্যু হয়েছে বাঘের থাবায়। ১০০ পুরুষের মৃত্যু রেখে যায় ১০০ বৈধব্য। বিধবা নারী। তাই গ্রামে গ্রামে বিধবা পাড়া। কখনো বা গ্রামই বিধবা।

মহিলাদের জীবন স্বামীর মৃত্যুর পর দিশেহারা হয়ে যায়। প্রশাসনের থেকে অনেকেই ক্ষতিপূরণ পান। আবার অনেকে নানা নথির জটিলতায় সেসব ক্ষতিপূরণ থেকে বঞ্চিতই থেকে যান। তাই সন্তানদের মুখে খাবার জোটাতে বিধবারাই ছুটে যায় কাঁকড়া-মাছের সন্ধানে, বিলে-খাঁড়িতে- জঙ্গলে। কিন্তু তাদের মধ্যেও কেউ কেউ শিকার হন বাঘের। কাউকে আবার টেনে নিয়ে যায় কুমির। তবে অনেক সংস্থাও প্রশাসনের পাশাপাশি এই মহিলাদের পাশে দাঁড়াতে এগিয়ে আসছে। তাদের কথা তুলে ধরছে। বাড়িয়ে দিচ্ছে সাহায্যের হাত।