শুধুমাত্র আলাদা হয়ে যাওয়ার ভয়ে বিয়ে করেনি সাতক্ষীরার এই দুই ভাই

10
শুধুমাত্র আলাদা হয়ে যাওয়ার ভয়ে বিয়ে করেনি সাতক্ষীরার এই দুই ভাই

ঘটনাটি শুনলে অবাক মনে হল ঘটনাটি বাস্তব সাতক্ষীরার ভাই কখনো বিয়ে করেনি শুধুমাত্র আলাদা হয়ে যাওয়ার ভয়ে। আগে খুলনা জেলার পাইকগাছা হারিঢালি গ্রামে বসবাস করতেন। তারা এখন সাতক্ষীরা গ্রামে থাকেন। ছোটবেলা থেকেই একসাথে বড় হয়েছে একসাথে ঘুরে বেরিয়েছে এজন্য তাদেরকে সবাই রাম লক্ষণ বলে ডাকতেন। কখনোই আলাদাভাবে দেখা যায়নি সব সময় জুটি বেঁধে থাকতেন তারা।

সাতক্ষীরায় দুই ভাইয়ের নাম হল মৃণাল কান্তি বসু ও দীপক কান্তি বসু। তারা পাইকগাছি হারিঢালি গ্রামে জমিদার বংশের ছেলে ছিলেন অর্থাৎ তারা বংশ-পরম্পরা জমিদার ছিলেন। এখন এই দুই ভাই রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়ায় এবং নিজের পৈত্রিক প্রতি বাঁচানোর জন্য মামলার কারণে তারা পায়ে হেঁটে খুলনা যায়। তাদের বাড়ি বলতে কিছুই নেই, তারা কোন মন্দির বা কোন গাছের তলায় দিন কাটায়। সূর্য উদয়ের সাথে সাথেই তাদের পথ চলা শুরু হয় এবং শেষ হয় সূর্য অস্তের পর ।

স্হানীয় লোকেরা এই সম্বন্ধে বলেছেন, তারা আগে জমিদার ছিলেন তাদের অনেক টাকা পয়সা ছিল কিন্তু তাদের জমি অনেকেই বেআইনি ভাবে দখল করে নেয় তার মামলা এখনো চলছে। এই দুই ভাই সম্বন্ধে আরও জানা যায় যে, তারা কখনোই কারো থেকে সাহায্য নেয়না। কিন্তু এক বুনিয়াদি পরিবার আছে যারা এই দুই ভাইকে সাহায্য করে এবং তাদের দৌলতেই তাদের জীবন চলছে।

স্থানীয় শিক্ষক সমীরন এই সমন্ধে বলেছেন, মৃনাল আগে ভারতীয় রেলে কর্মরত ছিলেন, পাঁচ বছর সে চাকরী করেছিলেন। কিন্তু তারপর সে গ্রামে ফিরে এসে আর ফিরে যায়নি চাকরির জায়গায়। এছাড়াও হরিঢালী গ্রামের চেয়ারম্যান আবু ফজর সিদ্দিকী তাদের জমি সম্বন্ধে কিছু কথা বলেছেন। সিদ্দিকীর মতে, শুনেছিলাম এই দুই ভাই এর পৈত্রিক জমি নিয়ে অনেক ঝামেলা ছিল এবং অনেক ধার-দেনায় হয়েছিল তাদের। পরে এমনও শুনেছি তাদের জমির দলিল কেনাবেচা হয়েছিল। এখন এই দুই ভাইয়ের মাথা গোজার ঠাই হলেই যথেষ্ট এছাড়া আর কিছুই চায়না তারা।