স্নান করতেই জানত না পশ্চিম ইউরোপীয় সভ্যতার এই মানুষেরা

9
স্নান করতেই জানত না পশ্চিম ইউরোপীয় সভ্যতার এই মানুষেরা

স্বাস্থ্য সচেতন মানুষ মাত্রই জানেন স্নানের প্রয়োজনীয়তা। অনেকেই বিশেষ করে গরমকালে দিনে দুই থেকে তিনবার স্নান করে থাকেন। স্নান শরীরের ক্লেদ, ঘাম, ত্বকের রোমকূপে জমে থাকা ময়লা দূর করে। তবে জানেন কি মধ্যযুগে প্রায় ১০০০ বছর ধরে পশ্চিম ইউরোপীয় সভ্যতার মানুষেরা স্নানের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে অবগত ছিলেন না। স্নান সম্পর্কে নানা ভুল ধারনা ছিল তাদের মধ্যে!

এরা মনে করতেন স্নান করলে রোমকূপের মাধ্যমে জলে থাকা জীবাণু শরীরে প্রবেশ করবে। ঠিক এই কারণেই পশ্চিম ইউরোপীয় সভ্যতার মানুষ কখনোই স্নান করতেন না। স্বয়ং স্পেনের রানি ইসাবেলও নাকি তার সমগ্র জীবনে মাত্র দুইবার স্নান করেছেন। স্নান তো দূরের কথা, ইউরোপীয়রা নাকি জলে সাঁতার কাটতেও জানতেন না! স্নান করার ধারণা ছিল তাদের কাছে বিলাসিতা মাত্র।

আরো একটি অদ্ভুত তথ্য জানলে অবাক হবেন। ফ্রান্সের রাজা প্রথম ফ্রাঁসোয়া ফ্রান্সজুড়ে বিশাল বড় এক রাজ প্রাসাদ গড়ে তুলেছিলেন। তবে সেই প্রাসাদে স্নানাগারের কোনো ব্যবস্থা ছিল না। এর থেকেই বোঝা যায়, স্নানের ধারণা তাদের মধ্যে তেমন ভাবে সমাদৃত ছিল না। এমনকি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন জামাকাপড় পরার ক্ষেত্রেও তাদের বিশেষ কোনো আগ্রহ দেখা যেত না।

পশ্চিম ইউরোপীয় সভ্যতার মানুষেরা নাকি জামা কাপড় পরিষ্কার করতেন এক অদ্ভুত উপায়ে। সাদা ছাই এবং প্রস্রাব মিশ্রিত আজব এক মিশ্রন দিয়ে তারা যে কোন বর্ণের কাপড় সাদা বর্ণে রূপান্তরিত করতেন। এই মিশ্রণ নাকি প্রাকৃতিক ব্লিচ হিসেবে কাজ করতো। এভাবেই তারা নিজেদের অপরিচ্ছন্ন জামা কাপড় পরিষ্কার তথা সাদা বর্ণে রঞ্জিত করতেন। এমনই অদ্ভুত নিয়ম চালু ছিল সেই প্রদেশে।