প্রবল জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা, শক্তি সঞ্চয় করে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় নিসর্গ

29
tidal surge

আর বেশি দেরি নেই, প্রায় এসেই পরল ঘূর্ণিঝড় নিসর্গ। মহারাষ্ট্র ও গুজরাত উপকূলে ব্যাপকভাবে আছড়ে পরতে চলেছে এই ঘূর্ণিঝড়। এই ঘূর্নীঝড় বিভিন্ন জায়গা থেকে বিভিন্ন দূরত্বে অবস্থান করছে, কিন্তু আগামী কয়েকঘন্টার মধ্যেই এই ঘূর্ণিঝড় আরও বেশী শক্তি ধারণ করবে বলে জানিয়েছে মৌসম ভবন। আগামীকাল সকাল ৭ টা থেকে দুপুর ১২ টার মধ্যে আছড়ে পরতে চলেছে এই ঘূর্ণিঝড়। এর গতিবেগ থাকবে ঘন্টায় ১২৫ কিমি, কিন্তু এখানেই শেষ না, সময়ের সাথে সাথে এর গতিবেগ আরও বেশী হতে থাকবে।

মহারাষ্ট্রের মুম্বাই, থানে, পালঘর, রায়গড়, হরিহরেশ্বর, সব জায়গায় আছড়ে পরবে। গুজরাতের দম, নগর হাভেলি সব জায়গায় আছড়ে পরবে। তাই উপকূলের মানুষজনকে ইতিমধ্যে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে, সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানা গেছে ২ লক্ষ মানুষকে ইতিমধ্যে সড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। কোস্ট গার্ড ইন্ডিয়ান নেভি সবাই কাজ শুরু করে দিয়েছে, উদ্ধার কার্য শুরু করে দিয়েছে, নিসর্গ আসার আগে যা যা নিরাপত্তার জন্য করণীয় সেই সব কাজ করা হচ্ছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ দুই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সাথে এই নিয়ে মিটিং করেছে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে। উপকূলের জেলাগুলোতে সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে ইতিমধ্যে, সব জায়গায় রেড এলার্ট। এদিকে একটি বড় চিন্তার বিষয় হল, মোট ৫৭৭ টি বোট গিয়েছিল সমুদ্রে, কিন্তু এখনও পর্যন্ত সবাই ফিরে আসে নি। তার মধ্যে ৪৭৭ টি বোট ফিরে এসেছে।

এখন এটা নিয়ে প্রশাসন চিন্তিত, তাদের খোজার চেষ্টা করা হচ্ছে, আকাশ পথে চলছে নজরদারী এদিকে বিভিন্ন জায়গায় পৌছে গেছে এনডি আর এফ বাহিনী। মতসজীবীদের উদ্ধার কার্যে জলপথেও নজরদারী চালানো হচ্ছে। কিন্তু এইসবের মধ্যে ভুলে গেলে হবে না, করোনার কথা। এই ঘূর্ণিঝড়ের কারণে, মহারাষ্ট্রে বিদ্যুৎ বিছিন্ন হওয়ার একটা আশঙ্কা আছে, আর সেই কারণ এযাতে চিকিৎসা ক্ষেত্রে কোনোভাবেই অসুবিধা না হয় সেই দিকেও ব্যবস্থা করা হচ্ছে।