পাতে মাংস কম পরায় হুলুস্থুল কাণ্ড বরপক্ষের, বিয়ে ভেঙে দিলেন তরুণী

16
পাতে মাংস কম পরায় হুলুস্থুল কাণ্ড বরপক্ষের, বিয়ে ভেঙে দিলেন তরুণী

বিয়ের কাজকর্ম প্রায় শেষ রীতিনীতি মেনে সবকিছুই হয়েছিল ঠিকই কিন্তু একেবারে শেষ মুহূর্তে এসে সমস্ত কিছু ঘেঁটে ঘ হয়ে গেল। বরপক্ষ খেতে বসে দাবি জানায় পাতে মাংস কম পড়েছে, আর সেই কারণেই দুই পরিবারের বচসা এমনকি প্যান্ডেল তছনছ ও হাতাহাতি পর্যন্ত হয়। একটা সময় এর সমস্ত কিছু ঠান্ডা হয়ে যখন মিটমাটের কথা ওঠে, তখন একেবারে বেঁকে বসে কণে। সে স্পষ্ট জানিয়ে দেয় একটা পরিবার যখন সামান্য মাংসের জন্য এই ধরনের ঘটনা ঘটাতে পারে, তাদের পরিবারে বউ হয়ে গিয়ে যে সারাজীবন শান্তিতে কাটাতে পারবে না সেটা স্পষ্ট। ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানের গলসিতে। তরুনীর এই সাহসী সিদ্ধান্তের পাশে দাঁড়িয়েছে তার পরিবার ও পাড়াপড়শিরা।

তরুনীর পিতা শাহজাহান মন্ডল পেশায় একজন দিনমজুর তিনি স্পষ্ট জানায় প্রথম দিকে একটু দ্বিধায় থাকলেও পরে মেয়ের সিদ্ধান্তেই একমত হয়েছি। এই নিয়ে তরুণীও জানায় সত্যিই এই পরিবারে শান্তিতে থাকতে পারবে না সে। নতুন আত্মীয় বাড়ি এসে যারা সামান্য মাংসের টুকরোর জন্য এই ধরনের আচরণ করতে পারে, তাদের বাড়ির বউ হওয়া সম্ভব নয়।

গত শনিবার দুপুরের মধ্যেই মসজিদে নিয়ম মেনেই বিয়ে হয় তাদের। এর পরেই রীতিনীতি মেনে বাড়িতে কাজী ডেকে বাকি সমস্ত কাজ করা হয়, একেবারে আনন্দের মুহূর্ত। কিন্তু বরপক্ষ খেতে বসেই মাংস না পাওয়ার কারণে যে হুলুস্থুল কাণ্ড বাধায়, সেই কারণেই বিয়ে ভাঙার সাহসী পদক্ষেপ নেয় স্বয়ং কণে। এরপরেই পুলিশ এসে বর তার বাবা ও পরিবারের আরো কয়েকজনকে থানায় নিয়ে গিয়ে আটক করে। পরে অবশ্য তাদের বিরুদ্ধে কোনো লিখিত অভিযোগ না থাকায় বাধ্য হয়ে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়। কিন্তু স্থানীয় সূত্রে জানা যায় দুই পরিবার এই নিয়ে মিটমাট করতে বসলেও তরুণী বিয়ে ভাঙার কথা ঘোষণা করে দেয়। আর তারপরেই বাধ্য হয়ে কাজী ডেকে তালাকপত্র তৈরি করা হয়।