মেয়ে ভেবে ছেলেকে বিয়ে করল বাংলার যুবক!

25
মেয়ে ভেবে ছেলেকে বিয়ে করল বাংলার যুবক!

আমরা ছোটবেলায় সুকুমার রায়ের লেখা কবিতার ‘হযবরল’-এর বিখ্যাত লাইন পড়েছি। সেখানে লেখা ছিল যে, ‘ছিল রুমাল, হয়ে গেল বিড়াল’৷ এই ঘটনাই ঘটল বাস্তবে৷ এক্ষেত্রে ছিল মেয়ে হলে গেল ছেলে৷ এমনটাই ঘটেছে ওড়িশার ভদ্রক জেলায়৷ লম্বা চুল নতুন কনের বেশের পিছনে ছিল একটি ছেলে৷

উত্তর ২৪ পরগনার যুবক অলোক কুমার মিস্ত্রির সঙ্গে ফেসবুকে আলাপ হয় ওড়িশার কেন্দ্ররাপাড়া জেলার জাম্বু মেরিন থানা এলাকার রামনগর গ্রামের বাসিন্দা মেঘনা মণ্ডলের৷ বেশ কিছুদিন চলল ফেসবুকে কথা৷ এরপরই একে অপরের প্রেমে পড়ে৷ মাত্র ১৫ দিন প্রেমের পর তাঁরা সিদ্ধান্ত নেন বিয়ের৷

এরপর বিয়ের জন্য অলোক ওড়িশার জাজপুর জেলায় চান্দিখোলে পৌঁছান৷ সেখানে পাত্রী মেঘনাও পরিবার নিয়ে আসেন৷ অলোকের মামার বাড়ি বাসুদেবপুরের কাসিয়ায়৷ সেখানেই অলোক ও মেঘনার চারহাত এক হয়৷ বিয়ের পর পরিবারের পক্ষ থেকে সন্ধে নাগাদ একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়৷
সেই অনুষ্ঠানেই ঘটল বিপত্তি৷ নতুন কনে মেঘনা থেকে হয়ে গেলেন মেঘনাদ৷ সেখানে নবদম্পতিকে শুভেচ্ছা জানাতে আসেন এক স্থানীয় মহিলা৷

তিনি মেঘনাকে দেখে মেঘনাদ বলে ডেকে ওঠেন৷ তাতেই হতচকিত হয়ে পড়েন অলোক ও তাঁর পরিবার৷ এরপরই শুরু হয়ে যায় কানাঘুশো৷ অলোকের পরিবার ওই অথিতিকে মেঘনাকে মেঘনাদ ডাকার কারণ জানতে চাইলে উত্তর শুনে হতবাক অলোক সহ পরিবার৷

মেঘনার ওই আত্মীয় দাবি করেন, মেঘনাদ তাঁর ভাইপো৷ গ্রামবাসীরা রেগেমেগে মেঘনা ওরফে মেঘনাদের লম্বা চুল কেটে ফেলে৷ খুলে দেয় জামাকাপড়৷ তারপরই স্পষ্ট হয় ‘মেঘনা’ আসলে ‘মেঘনাদ’৷ ঘটনার পড় মেঘনাদের এই কাণ্ডকারখানায় ছি ছি পড়ে যায় এলাকায়৷

বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ে অলোক৷ ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে ক্ষিপ্ত স্থানীয় সহ ছেলের পরিবারের হাত থেকে উদ্ধার করে মেঘনাদকে৷ সবটা জেনেও মেঘনাদকে অলোকের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ার ঘটনায় পরিবারের দিকে আঙুল তুলছে৷ এই ঘটনায় অলোক দাবি করে বলেন, আমাদের মেসেঞ্জারেই কথা হতো৷ কখনও ফোনে কথা হয়নি৷ এখানে বিয়ে করতে এসে কনে সাজের মধ্যে বুঝতেই পারিনি৷ বুঝতে পারলে হয়তো এই ভুলটা আমি করতাম না৷