চাকরির পেছনে না ছুটে নিজেরাই ব্যবসা করে আত্মনির্ভর হয়ে উঠলেন বারানসির তিন যুবক

4
চাকরির পেছনে না ছুটে নিজেরাই ব্যবসা করে আত্মনির্ভর হয়ে উঠলেন বারানসির তিন যুবক

করণা মহামারীর পরিস্থিতিতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের পাশাপাশি ভারতের অর্থনীতিও ক্রমশ নিম্নমুখী হয়ে পড়েছে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন বেসরকারি এবং অসংগঠিত ক্ষেত্রগুলি লক্ষ লক্ষ কর্মীকে তাদের সংস্থা থেকে ছাঁটাই করেছে। এমনকি যারা রয়েছেন তাদেরকেও প্রাপ্য বেতনের অনেক কম, এমনকি অর্ধেক মূল্য কাজ করতে হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে অনেক বেকার যুবক-যুবতী হন্যে হয়ে চাকরি খুঁজছেন।

তবে এদের মধ্যে বেশ কয়েকজন এমনও রয়েছেন যারা চাকরির পেছনে না ছুটে নিজেরাই ব্যবসা করে আত্মনির্ভর হওয়ার পথে এগিয়ে চলেছেন। সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশের বারানসির বাসিন্দা তিন যুবক ব্যবসা করে নিজেদের আর্থিক চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি আরো বেশ কিছু বেকারের কর্মসংস্থানের যোগান করে দিচ্ছেন। এই তিন যুবকই কিন্তু শিক্ষিত। এদের মধ্যে কেউ এমএবিডব্লিউ পাস, তো কেও গ্রাজুয়েট। চাকরি ছেড়ে এনারা মুক্তোর ব্যবসা শুরু করেন।

গ্রামের বাইরে ছোট ছোট পুকুর নিয়ে সেখানে ঝিনুকের চাষ করছেন তারা। ঝিনুক চাষ ছাড়াও মৌমাছি পালন এবং ছাগল পালনের কাজের সঙ্গেও যুক্ত রয়েছেন এই তিন যুবক। ঝিনুক চাষের জন্য ইন্টারনেট ঘেঁটে সমস্ত খুঁটিনাটি তথ্য জেনে নিয়েছিলেন তারা। পাশাপাশি স্থানীয় এক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে প্রশিক্ষণও নিয়েছিলেন। এর পরেই কর্মক্ষেত্রে নেমে পড়েন তারা। ঝিনুক চাষ করে প্রায় তিনগুণ লাভ হয় বলে জানিয়েছেন তারা।

বর্তমানে তাদের মুক্তোর ব্যবসা রমরমিয়ে চলছে। এদিকে স্থানীয় মধু বিক্রয়কারী সংস্থাগুলি তাদের কাছ থেকেই মধু সংগ্রহ করছেন। ফলে ব্যবসা করেই তাদের দেদার মুনাফা লাভ হচ্ছে। বর্তমানে তারা অন্যান্যদেরও ঝিনুক চাষের প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন। চলতি বছরে তাদের সংস্থায় আরও ২০০জনের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে এগোচ্ছেন এই তিন যুবক। তাদের এই উদ্যোগকে সমর্থন জানিয়েছেন উত্তরপ্রদেশ সরকারের ক্যাবিনেট মন্ত্রী তথা বারানসী জেলার বিধায়ক অনিল রাজভর।