বেআইনিভাবে টিউশন পড়াচ্ছে স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকারা, সবর হল শিক্ষা দপ্তর

16
বেআইনিভাবে টিউশন পড়াচ্ছে স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকারা, সবর হল শিক্ষা দপ্তর

বর্তমানে সরকারি স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকা কারা কারা প্রাইভেট টিউশনি পড়ানোর ব্যস্ত, তাদের নাম জোগাড় করে ইতিমধ্যেই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা শিক্ষা ভবনে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। দক্ষিণ দিনাজপুরের শুধু কিন্তু মাদ্রাসা কিংবা হাইস্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকারা নয় এর সাথে যুক্ত রয়েছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকারাও। আজ শুক্রবার এর মধ্যেই রিপোর্ট পেশ করার কথা জানানো হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই এই সমস্ত নাম জমা করায় শিক্ষক শিক্ষিকা মহলে দারুন চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

ইতিমধ্যেই অবশ্য শিক্ষা ভবনের তরফ থেকে হাই স্কুল জুনিয়ার হাই স্কুল মাদ্রাসা ও প্রাথমিক স্কুলগুলিতে নির্দেশিকা পাঠানো হয়েছে। মোটকথা যারা সরকারি স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকা হওয়া সত্বেও বেআইনিভাবে টিউশন পড়াচ্ছে, তাদের মোট 159 জনের তালিকা পাঠানো হয়েছে। যার মধ্যে 28 জন প্রাথমিক শিক্ষক শিক্ষিকা ও বাকি হাই স্কুল ও মাদ্রাসার স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকা।

এই আন্দোলন অবশ্য নতুন নয়, সরকারি স্কুলের শিক্ষক শিক্ষিকা হওয়া সত্ত্বেও যারা বেআইনিভাবে টিউশন করাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে গৃহশিক্ষকেরা। রাজ্যের বিভিন্ন জেলার সহকারী শিক্ষক শিক্ষিকারা একেবারে আরটিএ অ্যাক্ট 2009 সেকশন 28 কে একেবারে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে, চুটিয়ে টিউশন পরিয়ে যাচ্ছে তারা। অনেক আগের থেকেই এই আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছিল গৃহশিক্ষকেরা। চিটা প্রথম দিকে কোনো ব্যবস্থা না নেওয়া হলেও, শেষ পর্যন্ত যে ব্যবস্থা নেওয়া হলো সেই সিদ্ধান্তে খুশি গৃহশিক্ষকেরা।