রাজ্যে যাতে বার্ড ফ্লু মহামারী থাবা বসাতে না পারে সেজন্য আগে থেকেই সতর্ক বার্তা দিল রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর

3
রাজ্যে যাতে বার্ড ফ্লু মহামারী থাবা বসাতে না পারে সেজন্য আগে থেকেই সতর্ক বার্তা দিল রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর

করোনা মহামারীর প্রভাব এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেনি দেশ। তারই মধ্যে আবার পশু পাখির মধ্যেও মহামারী ছড়িয়ে পড়েছে। দেশের অন্তত সাতটি রাজ্য এই মুহূর্তে বার্ড ফ্লু মহামারীর মত ছড়িয়ে পড়েছে। যার ফলে প্রচুর সংখ্যক হাঁস-মুরগি, কাকের মৃত্যু হচ্ছে। বার্ড ফ্লুয়ের আতঙ্কে জর্জরিত সারাদেশ। এমতাবস্থায় রাজ্যে যাতে এই মহামারী থাবা বসাতে না পারে সেজন্য আগে থেকেই সতর্ক রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর।

বার্ড ফ্লু এড়াতে তাই সোমবার রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফ থেকে প্রত্যেক জেলায় আগাম সতর্কবার্তা পাঠানো হয়েছে। হিমাচলপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ, দিল্লি-সহ সাতটি রাজ্যে বার্ড ফ্লুয়ের আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এবার ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস যাতে বাংলাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে তার জন্য আগাম সতর্ক হয়েছে রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর। এই ভাইরাস সাধারণত শ্বাসনালীর মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

এই ভাইরাস ভিন রাজ্য থেকে যাতে এ রাজ্যের পশু-পাখিকে আক্রমণ করতে না পারে এবং পশুপাখি থেকে যাতে এই ভাইরাসের প্রকোপ মানব সমাজে ছড়িয়ে না পড়তে পারে, সেই উদ্দেশ্যে স্বাস্থ্য দপ্তরে তরফ থেকে কয়েকটি গাইডলাইন প্রকাশ করা হয়েছে। স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, রাজ্যবাসী যদি রাস্তায় কোন মৃত পাখি পড়ে থাকতে দেখেন, তাহলে তারা যেন সেটিকে স্পর্শ না করেন।

এক্ষেত্রে কোনো অসুস্থ পাখি দেখলে সত্বর জেলা স্বাস্থ্যকর্তা বা ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিককে খবর দিতে হবে। পাশাপাশি পাখির খামারে ভালভাবে নজর রাখতে হবে। কোনো হাঁস বা মুরগি হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে, শ্বাসকষ্ট দেখা দিলে বা ঝিমুনি ভাব লক্ষ্য করলে তৎক্ষণাৎ তাকে অন্য পাখিদের থেকে আলাদা করে ফেলতে হবে। তবে তার আগে অবশ্য হাতে গ্লাভস এবং মুখে মাস্ক পড়তে হবে। শিশুদের পোল্ট্রি ফার্ম থেকে দূরে রাখতে হবে। পাখির মাংস খেতে হলে ভালো করে ফুটিয়ে সেদ্ধ করে খেতে হবে। অপরপক্ষে ডিম ভালো করে সেদ্ধ করে তবেই খাওয়া যেতে পারে।