লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পে’র জালিয়াতি রুখতে একাধিক নির্দেশিকা জারি করল রাজ্য সরকার

50
লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পে'র জালিয়াতি রুখতে একাধিক নির্দেশিকা জারি করল রাজ্য সরকার

শুরু হতে চলেছে দুয়ারে সরকার। আরও একবার দুয়ারে সরকারের হাত ধরে আপনি লক্ষী ভান্ডারের সমস্ত কাজকর্ম করতে পারবেন। তবে এই প্রকল্পে জালিয়াতি আটকানোর জন্য ইতিমধ্যেই সতর্ক হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। লক্ষী ভান্ডার এর ফরম যাতে কোনোভাবেই নকল না হয় তার জন্য ইতিমধ্যেই ব্যবস্থা নিয়েছেন তিনি। যেকোনো ধরনের সমস্যা খালি অভিযোগ জানানোর জন্য নির্দিষ্ট হেল্পলাইন চালু করা হয়েছে। চলুন জেনে নেয়া যাক লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প নিয়ে জালিয়াতি রোধ করার জন্য কি কি পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন সরকার।

আগামী ১৬ ই আগস্ট থেকে রাজ্যে শুরু হতে চলেছে সরকার প্রকল্প শিবির।

এই শিবিরে বিশেষভাবে ব্যবস্থা থাকবে লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের উপভোক্তাদের জন্য।

দুয়ারে সরকারের নির্দিষ্ট কাউন্টার থেকে যে ফর্ম পাওয়া যাবে তা পূরণ করে জমা দিতে হবে সেখানেই।

কোনভাবেই যাতে কোনো উপভোক্তা প্রতারিত না হন, তার জন্য ফর্মে computer-generated ইউনিক নাম্বার দেওয়া থাকবে। সেই নম্বর থাকবে সরকারি আধিকারিকদের কাছে।

ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি জায়গা থেকে নির্দিষ্ট হেল্পলাইনে অভিযোগ আসতে শুরু করেছে। অভিযোগ, টাকার বিনিময় ফর্ম বিক্রি হতে পারে। এই বিষয়ে আগে থেকেই সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে জেলা শাসকদের। কোনভাবেই যেন কেউ প্রতারিত না হয় সেদিকে কড়া নজর দিতে হবে। কেবলমাত্র লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের শিবির থেকেই ফর্ম পাওয়া যাবে। অন্য কোন জায়গা থেকে ফ্রম নিয়ে এলে সেটা দিতে হবে না।

এবার চলুন জেনে নেওয়া যাক কি এই লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প।

বিধানসভা ভোটের আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর সমস্ত মহিলাদের আর্থিক সচ্ছলতার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ক্ষমতায় ফিরে এলে প্রতিমাসে পরিবারের মহিলাদের হাত খরচা দেবে সরকার, এমনটাই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি। প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী তপশিলি জাতি এবং উপজাতিদের মহিলাদের মাসিক এক হাজার টাকা এবং অন্যান্য মহিলাদের মাসিক ৫০০ টাকা করে দেয়া হবে। পয়লা সেপ্টেম্বর থেকে মহিলাদের ব্যাংক একাউন্টে টাকা ঢুকে শুরু করে দেবে।