সুদূর মহাকাশে অবস্থিত কোনো ছায়াপথের “রেডিও বার্স্ট” ভেসে আসছে! দাবি মহাকাশ গবেষকদের

46
সুদূর মহাকাশে অবস্থিত কোনো ছায়াপথের

ঠিক ১৫৭ দিন অন্তর অন্তর সৌরজগতের ছায়াপথ থেকে অন্ততপক্ষে কয়েক যোজন আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত কোনো ছায়াপথ থেকে রহস্যময় রেডিও ওয়েভ শোনা যাচ্ছে। সম্প্রতি মহাকাশ সম্পর্কে এরকমই এক চাঞ্চল্যকর দাবি তুললেন মহাকাশ গবেষকেরা। অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটির জার্নালে এই চাঞ্চল্যকর গবেষণার এই রিপোর্ট পেশ করা হয়েছে। যেখানে স্পষ্ট বলা হয়েছে, সুদূর মহাকাশে অবস্থিত অপর একটি ছায়াপথ থেকে পৃথিবীর উদ্দেশ্যে কয়েক মিলি সেকেন্ডের জন্য রেডিও তরঙ্গ ভেসে আসছে।

মহাকাশ বিজ্ঞানীদের ভাষায় এই ধরনের রেডিও তরঙ্গকে বলা হয় “রেডিও বার্স্ট”। যেখানে সুদূর মহাকাশে অবস্থিত কোনো সিগনাল থেকে শব্দ রেডিও তরঙ্গের মাধ্যমে ভেসে আসে। মহাকাশ গবেষকেরা যাকে আরও শুদ্ধ ভাষায় এফআরবি বা “ফার্স্ট রেডিও বার্স্ট” বলে থাকেন। তবে এই ঘটনা নতুন নয়। এর আগেও এরকম বহু রেডিও বার্স্টের শব্দ শুনতে পেয়েছেন মহাকাশচারীরা। মহাকাশে নাকি প্রায়ই এই ধরনের শব্দ শোনা যায়। বিজ্ঞানীদের আশা, মহাকাশের সুদূর কোনো ছায়াপথে ভিনগ্রহীদের উপস্থিতি থাকতেও পারে।

মহাকাশ বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, আমাদের ছায়াপথের ঠিক পাশেই অবস্থিত কোনো ছায়াপথ থেকে বিগত ২০১৭ সাল থেকে এই ধরনের একাধিক রহস্যময় শব্দ ভেসে আসছে। বিজ্ঞানীদের ধারণা, পৃথিবী থেকে প্রায় ৩০০ কোটি আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত কোনো ছায়াপথ থেকে পৃথিবীর উদ্দেশ্যে এই ধরনের রেডিও বার্স্ট ভেসে আসছে। এই বছরেই প্রত্যেক ১৬.৩৫ দিন অন্তর অন্তর শব্দতরঙ্গ শোনা যাচ্ছে। যেখানে পরপর চার দিন শব্দতরঙ্গ ভেসে আসে। পরের ১২টা দিন আর কোনো শব্দ শোনা যায় না।

সেরকমই এক নতুন রেডিও বার্স্টের সন্ধান পেলেন বিজ্ঞানীরা। যেখানে প্রথম ৯০দিন একাধিকবার শব্দ শোনা যাচ্ছে। তবে পরবর্তী ৬৭ দিন আবার সব চুপচাপ। এইভাবে ১৫৭ দিন অন্তর মহাকাশ থেকে শব্দতরঙ্গ ভেসে আসছে। এই শব্দ তরঙ্গের উৎস সম্বন্ধে জানতে আগ্রহী মহাকাশ বিজ্ঞানীরা। বিজ্ঞানীদের অনুমান, এর পেছনে ভিনগ্রহীদের হাত থাকলেও থাকতেও পারে।