মুখ্যমন্ত্রীকে দিয়ে পুজো উদ্বোধন করানোয় সাড়া দিচ্ছে না পুজো উদ্যোক্তারা

16
মুখ্যমন্ত্রীকে দিয়ে পুজো উদ্বোধন করানোয় সাড়া দিচ্ছে না পুজো উদ্যোক্তারা

লক্ষ্য করলে দেখা যাবে সরকারি অনুদান প্রাপ্ত ক্লাবের সংখ্যা কিন্তু কম নয়, এবারের সরকারী অনুদান অন্যবারের তুলনায় অনেকটাই বেশী। কিন্তু তাই বলে কি মুখ্যমন্ত্রীকে দিয়ে পুজো উদ্বোধন করানোর কোনো উদ্দেশ্য আছে তাদের ? সেটা বোঝা যাচ্ছে না। কথা মতো কাজ হলে ভার্চুয়াল মাধ্যমে পুজো উদ্বোধন করবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। কিন্তু তেমন কোনো সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না। বিশেষ করে পুজো উদ্যোক্তারা কোনোভাবেই সাড়া দিচ্ছে না।

উত্তরবঙ্গে এই সমস্যাটা বেশী, কারণ কোচবিহার প্রশাসনের তরফ থেকে হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপে উদ্বোধনের আবেদন পত্র চাওয়া হয়েছিল। কিন্তু তার কোনো সদুত্তর পাওয়া যায় নি। এমন পরিস্থিতি হওয়ার কারণ কি? তাহলেও কি দুর্নিতীর প্রভাব এবার পরল পুজোতেই? যেভাবে শাসক দলের নেতা মন্ত্রীরা জেল খাটছেন তাতে হয়তো বিশ্বাস উঠে গেছে সাধারণ মানুষের। পুজো উদ্বোধনের জন্য হয়ত কাউকে বেছে নিতে চাইছেন না। এমনটাই কিন্তু কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে আশেপাশে। কিন্তু ঘটনা আসলে সত্যি কিনা সেটা জানা যায় নি।

তবে উদ্যোক্তারা জানাচ্ছে উত্তরবঙ্গের অনেক পুজোর কাজ শেষ হয় পঞ্চমী ও ষষ্ঠীতে তাই মহালয়ার সময় পুজোর উদ্বোধন করাটা সম্ভব হবে না। সে কারণে সেখানকার উদ্যোক্তাদের তেমন একটা কৌতূহল নেই। অর্ধ সমাপ্ত পুজো মন্ডপ উদ্বোধন করতে তারা একেবারেই প্রস্তুত নয়। অনেকে যেভাবে বলছে মুখ্যমন্ত্রীর পুজো উদ্বোধনে অনীহা রয়েছে, সেটা তারা মানতে নারাজ। তাদের কথা একটাই পুজোর মন্ডপ পুরোপুরি তৈরী না হলে পুজোর উদ্বোধন করে কি হবে? আসলে এই উদ্বোধন নিয়ে অনেকেই রাজনীতি করতে চাইছে।