বার্ড ফ্লুর প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ার আগেই প্রত্যেক রাজ্যকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিলেন প্রধানমন্ত্রী

7
বার্ড ফ্লুর প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ার আগেই প্রত্যেক রাজ্যকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিলেন প্রধানমন্ত্রী

করণা পরিস্থিতি সামাল দিতে না দিতেই এসে গেল অন্য আর একটি ভয়ানক পরিস্থিতি। এক রাজ্য থেকে অন্য রাজ্যে ঝড়ের গতিতে বয়ে চলেছে বার্ড ফ্লু। ইতিমধ্যেই এই সংক্রমণ কপালে ভাঁজ ফেলেছে প্রশাসনের। এই পরিস্থিতির মধ্যেই পাবলিক হেলথ ইনস্পেক্টর প্রত্যেক রেস্তোরাঁকে নির্দেশ পাঠালেন যে কোন হোটেল অথবা রেস্তোরাঁতে যেন রোস্টেড চিকেন বিক্রী না হয়।

মিউনিসিপাল কর্পোরেশনের সিরিয়ার আধিকারিকরা ইতিমধ্যেই এই প্রসঙ্গে বৈঠকে বসেছেন। প্রত্যেক রাজ্যের উপর কড়া নজরদারি বসানো হবে বলে জানিয়েছেন তারা। জীবন্ত পশু বিক্রি বাজারে আলাদা করেই নজরদারি বসানো হবে।

এই প্রসঙ্গে N DM C মেয়ার জয়প্রকাশ ঘোষণা করেছেন যে, আমরা নজরদারি কমিটি তৈরি করব। দিল্লি ৬ টি জোনে বসবে এই কমিটি। তারা জীবন্ত পশুর বাজারে নজর রাখবে। মেয়র আরও জানিয়েছেন যে, আমরা প্রত্যেক ওভারে স্বাস্থ্য আধিকারিক দের বিভিন্ন রেস্তোরাঁয় ঢু মারতে বলেছি। যতদিন না এই পরিস্থিতি ঠিক হয় ততদিন যেন কোথাও রোস্টেড চিকেন বিক্রি না হয়।

দেশের দশটি রাজ্যে ইতিমধ্যেই ধরা পড়েছে বার্ড ফ্লু। সোমবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি প্রত্যেকটি চিড়িয়াখানা এবং পোল্ট্রি ফার্মে কড়া নজরদারি রাখতে বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী এই রোগের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ার আগেই প্রত্যেক রাজ্যকে সতর্ক থাকতে বলেছেন। ইতিমধ্যেই কেরালা, রাজস্থান, হিমাচল প্রদেশ, গুজরাট , হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, দিল্লি এবং মহারাষ্ট্রে পাওয়া গেছে এই সংক্রমণ।

অন্যদিকে সারা দেশজুড়ে করণা ভ্যাকসিনের শুরু হয়ে যাবে খুব শীঘ্রই। তাই নিয়ে সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেখানেই উঠে এসেছে এই বার্ড ফ্লু প্রসঙ্গ। বিশদে আলোচনা করেছেন তারা।