সংসদের বাদল অধিবেশনে পেশ হতে পারে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ বিল

10
সংসদের বাদল অধিবেশনে পেশ হতে পারে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ বিল

চলতি বছরের লোকসভা এবং রাজ্যসভার অধিবেশনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে। কারণ এই বছরেই জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ বিল পেশ হতে চলেছে সংসদে। বিজেপি সাংসদ রাকেশ সিং এই বিলটি রাজ্যসভায় উত্থাপন করতে পারেন বলে রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন উঠেছে। বিজেপির আরেক সাংসদ রবি কিসানও লোকসভায় এই বিল পেশ করতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে। উল্লেখ্য ২০১৯ সালেও রাকেশ সিং একটি প্রাইভেট মেম্বার বিল পেশ করেছিলেন যার বক্তব্য ছিল, কোনো পরিবারে দুইয়ের বেশি সন্তান থাকলে সেই পরিবারকে বাড়তি সুযোগ দেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত শুক্রবার দ্বিতীয় ভাগে রাকেশ সিং প্রস্তাবিত বিল আলোচনার জন্য বেছে নেওয়া হয়েছিল। ওই বিল থেকে আপাতত দ্বিতীয় স্লটের জন্য তুলে রাখা হয়েছে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে বাদল অধিবেশনের দ্বিতীয় সপ্তাহে সংসদে এই বিলটিকে উত্থাপন করা হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে। প্রসঙ্গত ইতিপূর্বে বহুবার সংসদে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ বিলের প্রসঙ্গ উত্থাপিত হয়েছে। তবে সেভাবে কখনো গুরুত্ব পায়নি।

বর্তমানে যে পরিস্থিতি দাঁড়িয়েছে তাতে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ বিল অবিলম্বে লাগু না হলে উত্তরপ্রদেশে জনবিস্ফোরণ হবে বলে আশঙ্কা করছে প্রশাসন। উল্লেখ্য উত্তরপ্রদেশের যোগী সরকার ইতিমধ্যেই জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ নীতি লাগু করেছে সেই রাজ্যে। আগামী ১০ বছরে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ নিয়ে মানুষের মধ্যে জনসচেতনতা গড়ে তোলার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে এগোচ্ছে যোগী সরকার।

জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য সর্বোচ্চ দুই সন্তান নীতি গ্রহণ বাধ্যতামূলক বলে জানিয়েছেন যোগী সরকার। দুইয়ের বেশি সন্তান থাকলে কোনো ব্যক্তি সরকারি চাকরির জন্য আবেদন করতে পারবেন না বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এমনকি এই নীতি না মানা হলে সরকারি ভর্তুকি, সরকারি প্রকল্প  স্থানীয় কোনো নির্বাচনে লড়াইয়েও অংশগ্রহণ করা যাবে না বলে জানানো হয়েছে। সরকারি চাকরি করার সময়েও যদি তৃতীয় সন্তানের জন্ম হয় তাহলে সেই ব্যক্তিকে চাকরি খোওয়াতে হতে পারে।