পুলিশ আপনার গাড়ি থেকে চাবি খুলে নেয়! এটা কি আদৌ নিয়মের মধ্যে পড়ে?

6
পুলিশ আপনার গাড়ি থেকে চাবি খুলে নেয়! এটা কি আদৌ নিয়মের মধ্যে পড়ে?

অনেক সময় লাইসেন্স ছাড়া বাইক চালানোর ক্ষেত্রে, ট্রাফিক পুলিশ পদক্ষেপ গ্রহণ করতেই পারে। কিন্তু তাই বলে নিয়মবিরুদ্ধ কাজ করবে আর আপনি চুপ করে বসে থাকবেন সেটা একেবারেই উচিত না। অনেক মানুষের এই অভিজ্ঞতা হয়তো হয়েছে, কাগজপত্র ছাড়া রাস্তায় গাড়ি নিয়ে বের হলে অনেক সময় ট্রাফিক পুলিশ আপনার গাড়ি থেকে চাবি খুলে নেয়। এটা কি আদৌ নিয়মের মধ্যে পড়ে? কখনই না। এটি একটি নিয়মবিরুদ্ধ কাজ।

স্বাভাবিকভাবেই মোটর বাইক নিয়ে যখন রাস্তায় বের হতে হয়, তখন সাধারণ কয়েকটি নিয়ম মানলে সেটা নিজের পক্ষেই সুবিধাজনক। বাইক চালানোর সময় হেলমেট পরা বাধ্যতামূলক, তার সাথে দেখে নেওয়া উচিত মোটরবাইকে হেডলাইট, হর্ন, ব্রেক ঠিকমত কাজ করছে কিনা। অবশ্যই সাথে লাইসেন্স ও গাড়ির কাগজপত্র আছে কিনা? সেটাও দেখে নেওয়া উচিত।

কিন্তু এই সমস্ত না মানলে একজন ট্রাফিক পুলিশ নিয়মের মধ্যে থেকে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করতেই পারে। কিন্তু তাই বলে আপনার বাইকের চাবি খুলে নেবে সেটা কোনোভাবেই মানা যায় না। এটি একটি নিয়মবিরুদ্ধ কাজ।আপনি তরফ থেকে যদি কোন ভুল থাকে অবশ্যই ট্রাফিক পুলিশ নিয়মের মধ্যে থেকে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে, তবে আপনার চাবি বাজেয়াপ্ত করার ক্ষমতা ও অধিকার তার নেই। এই ব্যাপারটা হয়তো অনেকেই জানে না, তাই তারা রাস্তায় ট্রাফিক পুলিশ দেখলেই অন্যদিকে ছুট লাগায়।

মানুষের নিজেদের ক্ষমতা সম্পর্কে অবগত থাকা প্রয়োজন সর্বদা। যদি ভারতীয় সংবিধানের কথা বলা হয় তাহলে, ইন্ডিয়ান মোটর ভেহিকেল অ্যাক্ট ১৯৩১ এর অধীনে কেবলমাত্র একজন এএসআই অফিসারঃ আপনার ট্রাফিক আইন লঙ্ঘন করার কারণে আপনার উপরে চালান কাটতে পারে। ট্রাফিক কনস্টেবল কখনোই এই কাজের দায়িত্বে থাকে না তারা কেবল অফিসারদের সাহায্য করে থাকে।

তাই এখন থেকে মাথায় রাখবেন রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় যদি ট্রাফিক পুলিশ নিয়মবিরুদ্ধ কাজ করে, কাবিননামা এমনকি বাইকের হাওয়া ছেড়ে দেওয়া।এই সমস্ত কিছু কার্যকলাপ করলে আপনি সরাসরি ট্রাফিক পুলিশের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারেন।।