রাস্তায় ক্রমশ কমছে দূরপাল্লার বাসের সংখ্যা? জানুন কারন

4
রাস্তায় ক্রমশ কমছে দূরপাল্লার বাসের সংখ্যা? জানুন কারন

পশ্চিমবঙ্গে ক্রমাগত বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। এর ফলে গণ পরিবহণ ব্যবস্থায় ফের ধাক্কা খাচ্ছে। বন্ধ হয়েছে একাধিক দূরপাল্লার রুটের বাস। কমতে শুরু করেছে যাত্রী। তারপর রাজ্য জুড়ে নির্বাচনী আবহ। তার জেরেই কমানো হচ্ছে বাস।

শুধু কলকাতা শহর নয়, একাধিক বাসের সংখ্যা কমেছে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের জেলা শহর যাওয়ার দূরপাল্লার বাস ও জেলা থেকে কলকাতায় আসার বাসের। সূত্রের খবর, করোনা পরিস্থিতিতে যে ভাবে দূরপাল্লার বাসে যাত্রী সংখ্যা কমছে তাতে বাস সংগঠংগুলির হিসাব অনুযায়ী বাস কমেছে প্রায় ৫০ শতাংশ।

বাস মালিকরাই এই পরিষেবা আর কতদিন দেওয়া সম্ভব হবে তা নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন। রাজ্যে বেসরকারি বাস ইউনিয়ন মারফত স্বীকৃত দূরপাল্লার বাসের সংখ্যা প্রায় ৬ হাজার। তার মধ্যে চলাচল করছে ওই দুই থেকে তিন হাজার বাস। বাস সংগঠনের এক নেতার হিসাব অনুযায়ী, কলকাতা থেকে চন্দ্রকোণার মধ্যে একটা বাস চালাতে একপিঠে খরচ হয় ৫৩০০ টাকা। সেখানে টিকিট বিক্রি করে পাওয়া যাচ্ছে মাত্র ২৬০০ টাকা। ফলে মালিকের ক্ষতি প্রায় ২৭০০ টাকা৷

একটি সংবাদমাধ্যমকে অল বেঙ্গল বাস মিনিবাস সমন্বয় সমিতির সাধারণ সম্পাদক রাহুল চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, প্রতিদিন রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বাস বন্ধ হয়ে যাওয়ার খবর পাচ্ছি৷ মালিকদের পিঠ ঠেকে গেছে দেওয়ালে। এভাবে চালানো সম্ভব নয়।” অন্যদিকে, খারাপ অবস্থা উত্তরবঙ্গের বাস মালিকদের। কারণ করোনার জেরে পর্যটক কমেছে। দ্বিতীয়ত শিলিগুড়ি, বালুরঘাট, মালদা থেকে বাস ভর্তি যাত্রী কলকাতা, দীঘা, বর্ধমান, দূর্গাপুর, খড়গপুর, আসানসোল আসছেন না। ফলে ফাঁকা আসন নিয়েই কিছুদিন যাতায়াত করে আপাতত বাস বন্ধ করে দেওয়া হল।