২০২২ সালে ভারতের ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবসে নতুন শিক্ষানীতি চালু হবেঃ প্রধানমন্ত্রী

8
২০২২ সালে ভারতের ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবসে নতুন শিক্ষানীতি চালু হবেঃ প্রধানমন্ত্রী

সম্প্রতি কেন্দ্রের তরফ থেকে ঘোষিত নয়া শিক্ষানীতির মূল উদ্দেশ্য সম্পর্কে একাধিক বক্তব্য পেশ করলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। দেশে নতুন শিক্ষানীতি চালু হলে শিক্ষার্থীরা কতটা ‌উপকৃত হবেন এবং কর্মসংস্থানের যে ব্যাপক উন্নতি হবে সেই নিয়ে বক্তব্য রাখেন তিনি। তিনি জানিয়েছেন আসন্ন ‌২০২২ সাল থেকেই রাষ্ট্রে নতুন শিক্ষানীতি চালু হয়ে যাবে। কেন্দ্রের গৃহীত পরিকল্পনা অনুযায়ী শুধু যে সিলেবাসই বদল হবে তা নয়, বদলাতে চলেছে মূল্যায়নের প্রক্রিয়াও।

এবিন বক্তব্য রাখতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থায় বহুকাল ধরে প্রচলিত মার্কশিট প্রক্রিয়ায় ছাত্র-ছাত্রীর আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। প্রধানমন্ত্রীর ভাষায়, ” মার্কশিট ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে প্রেসার শিট, এবং অভিভাবকদের কাছে তা প্রেস্টিজ শিট”। নম্বর পাওয়ার লড়াইয়ে মানসিক চাপে ভুগতে শুরু করে পড়ুয়ারা। এর ফলে প্রকৃত শিক্ষা অধরাই থেকে যায়। প্রধানমন্ত্রীর মতে, মার্কশিট প্রথার কারণেই অনেক গুণ সম্পন্ন পরীক্ষার্থীর দক্ষতা অবহেলিত হয়।

প্রধানমন্ত্রীর দাবি, মার্কশিট প্রথার আড়ালে বহু দক্ষ ছাত্র-ছাত্রী জীবন এবং জীবিকার লড়াইয়ে পিছিয়ে পড়ে। এই সমস্যার সমাধান করবে নয়া শিক্ষানীতি। প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, ২০২২ সালে ভারতের ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপিত হবে। ওই বছর থেকেই চালু হবে নতুন শিক্ষানীতি। তবে প্রধানমন্ত্রীর দাবি অনুসারে অনেকেই সন্দেহ প্রকাশ করছেন, নয়া শিক্ষা নীতি চালু হলে এবার থেকে হয়তো মার্কশিট প্রথা উঠে যাবে।

প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, সিলেবাসের পাশাপাশি ব্যক্তিগত নৈপুণ্য, প্রতিভা, নিষ্ঠা, মৌলিক যোগ্যতার নিরিখে এবার থেকে একটিই সামগ্রিক রিপোর্ট কার্ড পাবেন শিক্ষার্থীরা। নয়া শিক্ষানীতি ছাত্রছাত্রীদের ওপর থেকে সিলেবাসের চাপ কমাবে। পাশাপাশি ছাত্রছাত্রীকে কর্মোন্মুখ করে তুলবে। এই অভিনব শিক্ষানীতি চালু করতে ইতিমধ্যেই বিশ্বের তাবড় তাবড় শিক্ষক-শিক্ষিকাদের কাছ থেকে পরামর্শ নিচ্ছে কেন্দ্র। শীঘ্রই সেই সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য MyGov পোর্টালে প্রকাশ করা হবে।