খোঁজ মিলল নিখোঁজ হয়ে যাওয়া রাশিয়ার যাত্রীবাহী বিমানের

13
খোঁজ মিলল নিখোঁজ হয়ে যাওয়া রাশিয়ার যাত্রীবাহী বিমানের

শুক্রবার সকালে টমস্ক শহরের কাছে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিল রাশিয়ার একটি যাত্রীবাহী বিমান। টমস্ক শহরের কাছাকাছি আসার কিছুক্ষণের মধ্যেই এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে Antonov An-28 বিমানটির সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। আন্তর্জাতিক সংবাদসংস্থা Intrafax এর তরফ থেকে এই খবর জানানো হয়েছিল। পরে অবশ্য রুশ ইমারজেন্সি মিনিস্ট্রি জানিয়েছে, SiLA নামের বিমানসংস্থার ওই বিমানটি যান্ত্রিক ত্রুটির জন্য একটি ময়দানে জরুরি অবতরণ করে।

বিমানের সকল যাত্রীকে নিরাপদে উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। এই ঘটনায় হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। বিমানটির ১৯জন যাত্রীকেই উদ্ধার করে নিরাপদ জায়গায় পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই রাশিয়ার একটি যাত্রীবাহী বিমান সমুদ্রের উপর ভেঙে পড়ে। এই দুর্ঘটনার কারণে ওই বিমানের ২৮ জন যাত্রীর মৃত্যু হয়।

এর আগেও এমএইচ-১৭ বিমান দুর্ঘটনা নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছিল সারা বিশ্বে। মালয়েশিয়ার যাত্রীবাহী বিমান এমএইচ-১৭ ধ্বংসের নেপথ্যে রাশিয়ার সেনাবাহিনীর হাত রয়েছে বলে দাবি উঠেছিল। যে মিসাইলের আঘাতে বিমানটি খণ্ড-বিখণ্ড হয়ে যায় রুশ সেনার একটি মিসাইল ইউনিট সেই মিসাইল থেকে সরবরাহ করেছিল বলে অভিযোগ ওঠে। ২০১৪ সালের জুলাই মাসে অ্যামস্টারডাম থেকে কুয়ালালামপুরগামী এমএইচ-১৭ যাত্রীবাহী বিমানটির উপর মিসাইল হামলা চালানো হয়েছিল।

এই বিমান দুর্ঘটনায় ২৯৮ জন যাত্রী ও চালকদের মধ্য থেকে সকলেই নিহত হয়েছিলেন। ঘটনার দায়ভারের আঙ্গুল ওঠে রাশিয়ার দিকে। এতে সারা পৃথিবী রাশিয়া সমালোচনা করেছিল। ইউক্রেন ও ইউরোপীয় দেশগুলির এই অভিযোগ অবশ্য খারিজ করে দিয়েছিল রাশিয়া। তবে পরে ডাচ বিশেষজ্ঞরা ঘটনাস্থলে তদন্ত চালিয়ে রাশিয়ায় তৈরি ‘বাক’ জাতীয় ভূমি-থেকে-আকাশে হামলায় সক্ষম ক্ষেপণাস্ত্রের টুকরো উদ্ধার করেছিলেন বলে দাবি করেন।