সরকারের প্রভাব কোনোভাবেই এই শিক্ষানীতিতে পরা উচিত নয়ঃ প্রধানমন্ত্রী

8
সরকারের প্রভাব কোনোভাবেই এই শিক্ষানীতিতে পরা উচিত নয়ঃ প্রধানমন্ত্রী

আজ সোমবার ভারতের জাতীয়শিক্ষা রাজনীতি নিয়ে একটি বৈঠক করেছে, সেখানে উপস্থিত ছিল রাজ্যপাল, বিভিন্ন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি ও বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য। সেখানেই প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন এই শিক্ষা নীতি দেশকে আত্মনির্ভর করে তোলার জন্য খুব উপকারী। কারণ এই জাতীয় শীক্ষানীতি কিন্তু কোনোভাবেই কেন্দ্রীয় সরকারের কোনো পদক্ষেপ, এমনটা ভাবলেই হবে না। কারণ এই পদক্ষেপ সারা ভারতের জন্য।

এই পদক্ষেপ দেশের নীতিকে যে আরো বেশী বৃদ্ধি করবে সেটা স্পষ্ট বোঝা যাবে। প্রধানমন্ত্রী ভার্চুয়াল বৈঠকে জানিয়েছেন, এই শীক্ষানীতি দেশের সামাজিক ও আর্থিক পরিবর্তন নিয়ে আসবে। আর সেই কারণেই দেশ আত্মনির্ভর গড়ে উঠবে। এই নীতির ফলে কিন্তু শুধু পঠন পাঠনের ধরন নয়, সাথে আরও বিভিন্ন কিছু সেটা সামাজিক হোক কিংবা অর্থনৈতিক সব দিক থেকেই উন্নতি করবে।

প্রধানমন্ত্রী কিন্তু এখানেই শেষ করেন নি, তিনি বলেন, এখন সময়ের সাথে সাথে এগিয়ে যাচ্ছে এই নতুন শিক্ষানীতি। আর তার ফলেই দেখা যাচ্ছে পড়ুয়াদের বিভিন্ন চাহিদা। এই শিক্ষানীতি সেইসব চাহিদাকেই পূর্ণ করবে ও কম চাপ দিয়েও যে তাদের সঠিক পথে অগ্রসর করা যায় সেটাও প্রমাণ করবে। দেশের যা বর্তমান দাবি সেটাই এই নতুন শিক্ষানীতিতে তুলে ধরা হয়েছে।

শেষে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, আসলে এই শিক্ষানীতি নিয়ে সরকারি হস্তক্ষেপ যে কতটা ক্ষতিকর। কারণ এতে শিক্ষানীতির ক্ষতি ও বর্তমান যুব সমাজের ক্ষতি করতে পারে। তাই এখন শিক্ষানীতিতে সরকারি হস্তক্ষেপ না হওয়াটাই জরুরি। সরকারের প্রভাব কোনোভাবেই এই শিক্ষানীতিতে পরা উচিত নয়। এই শিক্ষানীতিতে পড়ুয়া, কলেজ, কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোন্নয়নে সদর্থক ভূমিকা পালন করবে।