অসহায় পরিচারিকার সৎকার গম্ভীরের

57
অসহায় পরিচারিকার সৎকার গম্ভীরের

গোটা দেশ জিরে করোনা আতঙ্ক। বাড়ছে করোনা ভাইরাসের সংক্রমন, বাড়ছে মৃত্যু। করোনা মোকাবিলার জন্য গোটা দেশ জুড়ে ৩ মে পর্যন্ত লকডাউন বাড়িয়ে দিয়েছে কেন্দ্র সরকার। লকডাউনের মধ্যে গৌতম গম্ভীরের বাড়ির পরিচারিকার মৃত্যুর হয়।

মৃত পরিচারিকার শেষকৃত্য সম্পন্ন করেন গম্ভির। টুইটারে গম্ভীর তার বাড়ির পরিচারিককে নিয়ে আবেগঘন পোষ্টও করেছে। তিনি টুইট করে লিখেছেন, তাঁর বাড়ির কচি কাঁচাদের দায়িত্ব নেওয়া মোটেই পরিচারিকার কাজ নয়। উনি তাঁদের পরিবারের অংশ হয়ে গিয়েছিলেন। তাই ওঁর শেষকৃত্য তাঁর দায়িত্বের মধ্যেই পড়ে বলে জানান তিনি।

সরস্বতী পাত্র জাজপুর জেলার বাসিন্দা। অনেকদিন ধরেই উচ্চ রক্তচাপ এবং ডায়াবেটিসে ভুগছিলেন তিনি। কিছুদিন আগেই গঙ্গারাম হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। গত ২১ এপ্রিল তাঁর মৃত্যু হয়। বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার সদস্য ধর্মেন্দ্র প্রধান ওড়িশার বাসিন্দা। তিনি টুইট করে বলেন, অসুস্থ থাকাকালীন সরস্বতী দেবীর পুরো দায়িত্ব নিয়েছিলেন গম্ভীর।

https://platform.twitter.com/widgets.js
কিন্তু যেহেতু লকডাউন চলছে, তাই লকডাউনের মধ্যে তাঁর মৃতদেহ ওড়িশায় পাঠানো সম্ভব নয়, এটা জানার পর সম্মান রক্ষার্থে তিনি নিজেই শেষকৃত্য করেছেন। তিনি আরও জানান, দরিদ্র মানুষের প্রতি গম্ভীরের সহানুভূতি এবং লক্ষ লক্ষ মানুষের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার মতো কাজের জন্য গোটা সমাজ তাঁকে কুর্নিশ করছে।