বাড়ানো হবে দুয়ারে সরকার প্রকল্পের সময়সীমা এবং শিবির! ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

20
বাড়ানো হবে দুয়ারে সরকার প্রকল্পের সময়সীমা এবং শিবির! ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নির্বাচনের আগে দুয়ারে সরকার প্রকল্প নিয়ে এসেছিলেন সর্বসাধারণের জন্য। এই প্রকল্পের মাধ্যমে আপনি আপনার বাড়ির কাছে কোন শিবিরে গিয়ে যাবতীয় সরকারি কাগজ পত্র সংশোধন অথবা নতুন পরিচয়পত্র করতে পারবেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, ক্ষমতায় এলে তিনি আরও একবার বাংলার মহিলাদের জন্য নতুন একটি প্রকল্প আনবেন।

প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী, চলতি মাস থেকে শুরু হয়ে গেছে আরও এক বার দুয়ারে সরকার প্রকল্প। এই শিবিরে গিয়ে আপনি অনায়াসে করে ফেলতে পারবেন লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প। তবে ইতিমধ্যে প্রতিদিন প্রত্যেকটি শিবিরে উপচে পড়ছে ভিড়। মহামারীকে উপেক্ষা করে রীতিমতো ঠাসাঠাসি করে শিবিরের বাইরে অপেক্ষা করছেন বহু মানুষ।

তাই পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য এবার দুয়ারে সরকার প্রকল্পের সময়সীমা এবং পদ্ধতিতে বদল আনলেন তিনি। বুধবার বিকেলে নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, লক্ষীর ভান্ডারে ব্যাপক সাড়া পড়ে গেছে ইতিমধ্যেই রাজ্যে। মাত্র ৩ দিনে আবেদনপত্র জমা পড়েছে প্রায় ৪৬ লক্ষ। এরপর আমজনতাকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেছেন, তাড়াহুড়ো করবেন না। এখনো অনেক দিন বাকি আছে। ধীরেসুস্থে আবেদন করুন। প্রত্যেকে প্রকল্পের সুবিধা পাবেন।

এরপরই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দেন, প্রয়োজনের সময় বাড়ানো হবে দুয়ারে সরকার ক্যাম্পেইনের সময়। বাড়ানো হতে পারে শিবিরের সংখ্যা। এইভাবে সাধারণ মানুষের সমস্যা কিছুটা হলেও মিটবে বলে তিনি আশাবাদী। তবে এই দিনে তিনি আরও একবার জনসাধারণকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের আবেদন পত্র শুধুমাত্র আপনি পাবেন দুয়ারে সরকার শিবিরে। কোন ভাবে কোন প্রতারকের ফাঁদে পড়ে যাবেন না।

প্রসঙ্গত, এই প্রকল্পের মাধ্যমে প্রত্যেক সাধারন মহিলা মাসে ৫০০ টাকা করে পাবেন হাত খরচা হিসাবে এবং তপশিলি জাতি এবং উপজাতি মহিলারা প্রত্যেক মাসে ১০০০ টাকা করে হাত খরচা পাবেন।