করোনায় দূরত্ববিধি বজায় রাখার জন্য নদীর ব্রিজের উপর বিয়ে সারলেন এই দম্পতি

9
করোনায় দূরত্ববিধি বজায় রাখার জন্য নদীর ব্রিজের উপর বিয়ে সারলেন এই দম্পতি

করোনা বড় বালাই! কবে এই বালাইয়ের হাত থেকে রেহাই মিলবে তার কোন নিশ্চয়তা নেই। তাই বলে মানুষ বিয়ে করবেন না এমনটা তো নয়! প্রশাসনের তরফ থেকেও অবশ্য বিয়ের ব্যাপারে কোনো বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়নি। শুধু সামাজিক দূরত্ব বিধি মেনে বিয়ে করলেই হল! বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই অবশ্য সরকারের তরফ থেকে লাঘু করা এই নিয়মবিধি লঙ্ঘিত হচ্ছে। তবে ভারতবর্ষে সচেতন নাগরিকের সংখ্যাও কিন্তু কিছু কম নয়।

যেমন সম্প্রতি করোনায় দূরত্ববিধি বজায় রাখার জন্য আস্ত একটি বিমান ভাড়া করে বিবাহ সেরেছিলেন এক দম্পতি। সেই নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় জোর চর্চা হয়। তবে এবার কেরল এবং তামিলনাড়ুর সংযোগস্থলেও এমন একটি অভিনব বিয়ের সাক্ষী থাকলো নেট দুনিয়া। করোনাবিধি বজায় রেখে ‌বিয়ে করার জন্য তামিলনাড়ুর দিন্দিগুলের বাতলাগুণ্ডুর বাসিন্দা থাঙ্গামাইল এবং কেরলের মারায়ুর ইদুক্কির উন্নিকৃষ্ণন বেছে নিলেন তামিলনাড়ু এবং কেরল সংযোগকারী ব্রিজটিকে!

কেরল এবং তামিলনাড়ুর মাঝখান দিয়ে বয়ে গিয়েছে চিন্নার নদী। সেই নদীর উপর দিয়ে যে ব্রিজ রয়েছে তা কার্যত কেরল এবং তামিলনাড়ু রাজ্যদুটিকে সংযুক্ত করেছে। সেই ব্রিজের উপরেই প্রশাসনের উপস্থিতিতে বিয়ে করলেন নবদম্পতি। পুরোহিতের কোন বালাই নেই, একে অপরকে শুধু মালাবদল করিয়েই বিয়ে সম্পন্ন হলো! দুই পরিবার ব্রিজের দুই প্রান্তে দাঁড়িয়ে নবদম্পতিকে আশীর্বাদ করলেন।

আসলে করোনাকালে বিয়েতে উপস্থিত হওয়ার জন্য বরপক্ষ এবং কনেপক্ষের করোনা টেস্ট করানো বাধ্যতামূলক। সেই জায়গায় কনের পরিবারের ১০ জন সদস্যের করোনা টেস্ট করাতেই ২৬ হাজার টাকা খরচ হয়ে যেত। এতে সময় এবং অর্থ, দুইই খরচ হতো। তাই বিয়ের জন্য এই পন্থা অবলম্বন করলেন নবদম্পতি। প্রসঙ্গত গত বছরেও এই ব্রিজের উপরেই ১১ জন দম্পতি বিবাহ করেছিলেন।