এই শহরের ঘড়িতে কখনও বাজে না ১২টা!

25
এই শহরের ঘড়িতে কখনও বাজে না ১২টা!

সুইজারল্যান্ডের সৌন্দর্য যে কোনো দেশের সৌন্দর্যকে হার মানায়। তাই সেখানকার সৌন্দর্য বারবার সবাইকেই মুগ্ধ করে তোলে। প্রতি বছর বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের পর্যটকরা সুইজারল্যান্ডে ঘুরতে যান।

সুইজারল্যান্ডের উত্তর পশ্চিম প্রান্তের এক শহর রয়েছে, তার নাম সোলোথার্ন। পর্যটকরা এই শহরে ঢুকেই দেখতে পান টাউন স্কয়ারের সামনে এক বিশাল ঘড়ি। কারণ সোলোর্থান শহরের মূল কেন্দ্রেই দর্শন মেলে রহস্যময় এই ঘড়ির।

এই ঘড়ি রহস্যময় কারণ এটি অন্যান্য ঘড়ি থেকে ভিন্ন। সাধারণত সব ঘড়িতে এক থেকে ১২টার কাঁটা থাকে। তবে সোলোর্থানের এই রহস্যময় ঘড়িতে আছে শুধু ১১টি কাঁটা। সেই হিসাবে এ শহরের ঘড়িতে কখনও বাজে না ১২টা।
জানলে অবাক হবেন, শুধু এ শহরের ঘড়ি নয়, অনেক কিছুতেই ১১ সংখ্যার নিদর্শন পাওয়া যায়। যেমন- এ শহরে আছে ১১টি জাদুঘর, ১১টি গির্জা, ১১টি ঝর্ণাসহ আরও অনেক কিছু।

ইতিহাস অনুযায়ী, একাদশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে এই নগরীতে ইলভ নামে এক জার্মান আসেন। যিনি এই নগর প্রতিষ্ঠা করেন। তার অবদানের জন্য ইলভ সোলোথার্নবাসীর সমর্থন পেয়েছিলেন। এ কারণে ইলভের নামের সঙ্গে মিলিয়ে ইলেভেন সংখ্যায় বিভিন্ন নিদর্শন তৈরি করা হয়।

পর্যটকরা সুইজারল্যান্ড গেলে এই বিস্ময়কর জায়গাটা দেখতে ভোলেন না! তাই সেখানে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের ভিড় চোখে পড়ে।