জন্মহার বাড়াতে এবার পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা করল চীন সরকার

7
জন্মহার বাড়াতে এবার পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা করল চীন সরকার

চীনের জিনপিং সরকার সত্যিই কখন যে কি সিদ্ধান্ত নেবে তা বাইরে থেকে বলা শক্ত। এবার যেন উল্টো পথে ফিরে যাওয়া, কারণ ১৯৭৮ সালের চীন সরকার অর্থনৈতিক দিক থেকে উন্নত হওয়ার জন্য জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের পথে হেটে ছিল। কিন্তু এবার সেই পথেই ফিরে যেতে চাইছে জিনপিং সরকার।

একটা সময় উৎপাদিত সামগ্রীর সাথে চাহিদার ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য এই জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ। কিন্তু এবার চীন সরকার ৪২ বছর পরে সেই পুরনো পথেই হেঁটে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিল। সূত্রের মাধ্যমে জানা গেছে, বয়স্ক মানুষদের সাথে ভারসাম্য বজায় রেখে কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যা বাড়াতেই এই নতুন উদ্যোগ চিন সরকারের। ইতিমধ্যে চীন সরকার পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা নিয়ে নিয়েছে ২০২১-২৫সাল পর্যন্ত।

সম্প্রতি একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে, শি জিনপিং সরকার মনে করছে বর্তমান সময়ে বয়স্কদের সংখ্যা কর্মক্ষম মানুষদের থেকে বৃদ্ধি পাচ্ছে। সম্প্রতি একটি রিপোর্টে দেখা গেছে গত বছর পর্যন্ত চিনে ৬০ ও তার বেশি বয়স্ক লোকের সংখ্যা ২৫ কোটির ওপরে।

আগামী ২০২৫ সালে সেটা ৩০ কোটি দাঁড়াবে ও ২০৩৫ সালে সেটা ৪০ কোটিতে। আর সেই হিসেবে কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যা দাঁড়াবে ২০৫০ সালে মাত্র ২০ কোটিতে। যার ফলে দেশের অর্থনীতিতে অনেকটাই প্রভাব পড়বে কারণ উৎপাদন কম হবে ও বয়স্ক মানুষদের পেছনে সরকারি অর্থ বেশি খরচ হবে। তাই এবার চিন সরকার ১৯৭৮ সালের এক সন্তান নীতির বদলে অনেক সন্তান নেওয়ার জন্য নাগরিকদের উৎসাহ দিচ্ছে, এমনকি আর্থিক সাহায্য করার পরিকল্পনা পর্যন্ত করছে।