১২৫ কিমি লম্বা একটি রেলপথ তৈরী করার উদ্যোগ নিলো কেন্দ্রীয় সরকার

13
১২৫ কিমি লম্বা একটি রেলপথ তৈরী করার উদ্যোগ নিলো কেন্দ্রীয় সরকার

একটা সময়ে সম্পদের দিক থেকে ভারত ছিল সবথেকে শক্তিশালী, সেই সম্পদশালী দেশ এখন আস্তে আস্তে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, তবে এই নষ্ট হওয়া থেকে নিজেদের বাঁচানোর তাগিদে চেষ্টা করার জন্য এগিয়ে যাচ্ছে ভারত। বহু বছর আগে একটি আক্রমণের ফলে ভারত থেকে হারিয়ে গিয়েছিল সোনেকি চিরিয়ার খেতাব। তবে ভারতে আবার একটি নতুন সভ্যতা গড়ে তোলার জন্য এবার প্রস্তুত হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

ভারতের পরিকাঠামোয় এতদিন নজর ছিল না কারোর, তবে সম্প্রতি ভারতের পরিকাঠামোকে আবার নতুন করে গড়ে তোলার জন্য প্রস্তুত কেন্দ্রীয় সরকার। একটার পর একটা টানেল তৈরি হচ্ছে উত্তর ভারতের পার্বত্য অঞ্চলে। বর্তমানে কেন্দ্রীয় সরকার উত্তরখন্ড থেকে ১২৫ কিমি একটি লম্বা রেলপথ তৈরী করার জন্য সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যেটি তৈরি করতে খরচ হতে পারে ১৬,২১৬ কোটি টাকা।

এই রেলপথটি বৃস্তিত হবে উত্তরাখণ্ড ঋষিকেশ থেকে কর্ণপ্রয়াগ পর্যন্ত। শিবপুরি থেকে বিয়াসির পর্যন্ত এক কিলোমিটার টানেল তৈরি করতে সময় নিয়েছে মাত্রমাত্র ২৬ দিন এটি একটি নতুন ইতিহাস গড়ার মতো ব্যাপার। এই টেনেলটি বানানোর দায়িত্বে রয়েছে দেশের বিখ্যাত কোম্পানি। কোম্পানিটি সম্পর্কে মুখ্যমন্ত্রী পুষ্কর সিং ধোনি জানিয়েছেন,” মাত্র ২৬ দিনে ১,০১২ মিটার লম্বা একটি টেনেল লাগানোর কাজ সম্পূর্ণ করেছে কোম্পানিটি। অনেক ধন্যবাদ এই কোম্পানিকে”।

বিভিন্ন ভৌগোলিক অবস্থানের মধ্যে দিয়ে যেই কাজটি এত তাড়াতাড়ি করা সম্ভব হয়েছে সেটাই থেকে বড় কথা। উত্তরাখণ্ডের এই রেল প্রকল্পটিতে নতুন করে রেলস্টেশন তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ১২৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই প্রকল্পটিরতে থাকছে দেবপ্রয়াগ তেহরি গাড়ওয়াল। টানেল এর মধ্যে থাকবে ১০০ কিলোমিটার রেললাইন। কেন্দ্রীয় সরকার ইতিমধ্যে গঙ্গোত্রী, যমুনোত্রী, কেদারনাথ এবং বদ্রীনাথ ধাম গুলিকে একই রেল লাইনে আনার জন্য নতুন প্রকল্পের কাজ শুরু করে দিয়েছেন।